• শনিবার, এপ্রিল ০৪, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৩৩ সকাল

রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে ঢাবি শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ

  • প্রকাশিত ০৯:৪৩ সকাল জানুয়ারী ৬, ২০২০
গণধর্ষণ-ধর্ষণ
প্রতীকী ছবি বিগস্টক

সন্ধ্যা ৭টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস থেকে নামার পর অজ্ঞাত ব্যক্তি তাকে তুলে নিয়ে যায়

রাজধানীর কুর্মিটোলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রবিবার (৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস থেকে নামার পর এ ঘটনা ঘটে। পরে তাকে রাতে ১২টার তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করা হয় বলে জানিয়েছেন ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের (ইনচার্জ) ইন্সপেক্টর বাচ্চু মিয়া। তিনি ঢাবির দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী হিসেবে অধ্যয়নরত।

এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সার্বিক সহযোগিতা করবেন বলে জানিয়েছেন ঢাবি ভিসি মো. আখতারুজ্জামান। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর বাবা বাদী হয়ে ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

প্রসঙ্গত, রবিবার রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে করে বন্ধুর বাসায় যাচ্ছিলেন ওই শিক্ষার্থী। সন্ধ্যা সাতটার দিকে ভুল করে নির্ধারিত স্টপেজের আগেই কুর্মিটোলা স্টপেজে নেমে যান তিনি। এরপর অজ্ঞাত এক ব্যক্তি তার মুখ চেপে ধরে একটি নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। ধর্ষণের এক পর্যায়ে অজ্ঞান হয়ে যান তিনি।

রাত ১০টার দিকে  জ্ঞান ফেরার পর একটি সিএনজি নিয়ে ক্যাম্পাসে ফিরে আসেন তিনি। এরপর রাত ১২টার দিকে তার সহপাঠীরা খবর পেয়ে তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ক্যান্টনমেন্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী সাহান হক। 

ঢামেকের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসিরুদ্দীন বলেন, “বর্তমানে মেয়েটির শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে, তবে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত অবস্থায় রয়েছে।” 

এ ঘটনায় স্ত্রী-রোগ বিশেষজ্ঞ সালমা রউফকে প্রধান করে সাত সদস্যের একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।