• বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩০ সকাল

মেহেরপুরে দেশি বাবুই

  • প্রকাশিত ০৮:৩৫ রাত জানুয়ারী ৯, ২০২০
বাবুই
দেশি বাবুই পাখি। সংগৃহীত

বাসা তৈরির কাজ অর্ধেক হতেই স্ত্রী বাবুইকে কাঙ্খিত বাসা দেখায় পুরুষ বাবুই। কারণ বাসা পছন্দ হলেই কেবল উভয়ের সম্পর্ক গড়ে উঠবে

কবি রজনীকান্ত সেনের লেখা “বাবুই পাখিরে ডাকি, বলিছে চড়াই,/ কুঁড়েঘরে থেকে কর শিল্পের বড়াই,/ আমি থাকি মহাসুখে অট্টালিকা পরে/ তুমি কত কষ্ট পাও রোদ, বৃষ্টি, ঝড়ে।” কবিতার লাইনগুলো নিশ্চয়ই আজও সবার মনে আছে। পাঠ্যবইয়ে অন্তর্ভুক্ত থাকা কবিতাটি পড়ে শিক্ষার্থীরা বাবুই পাখি ও বাবুই পাখির শিল্পনিপুণতার কথা জানতে পারলেও মানুষের অসচেতনতায় আজ বাবুই পাখি ও এদের বাসার অস্তিত্ব হুমকির মুখে। হারিয়ে যাওয়া কালো বাবুইয়ের দেখা পাওয়া গেল মেহেরপুরের হরিরামপুর বিলপাড়ের কাশবনে।

পাখি বিশেষজ্ঞদের মতে বিশ্বে ১১৭ প্রজাতির বাবুই পাখি আছে। এরমধ্যে বাংলাদেশে তিন প্রজাতির বাবুয়ের মধ্যে বাংলা ও দাগি বাবুই প্রজাতি বিলুপ্তির পথে, তবে দেশি বাবুই এখনো দেশের সব গ্রামের তাল, নারকেল, খেজুর, রেইনট্রি গাছে দলবেঁধে বাসা বোনে। এরা সাধারণত মানুষের কাছাকাছি বসবাস করে। ফলে অনেক অসচেতন মানুষের অত্যাচার ও বসবাসের পরিবেশের অভাবে এদের সংখ্যা রহস্যজনকভাবে কমে যাচ্ছে।

জেলার পাখি প্রেমিদের সংগঠন “কিচির মিচির বার্ড ক্লাব”এর সভাপতি ফারিহা ইকবাল দেশি বাবুই সম্পর্কে বলেন- এ বাবুই পরিবেশের অভাবে হারিয়ে যাচ্ছে। এদের বাসা বুননের সময় বর্ষকাল। এ সময় দক্ষিণ পশ্চিম থেকে আসা মৌসুমী বাতাস যেন ক্ষতি করতে না পারে এ জন্য বাসার মুখগুলো পূর্বমুখি করে বোনে। বাসায় ঢোকা ও বের হওয়া বাদেও বাড়তি একটি পথ তারা তৈরি করে রাখে। যাতে সাপ. গিরগিটি জাতীয় শিকারিরা সেই ছদ্মবেশী পথে পথ ভুল করতে পারে। যাতে তাদের অবস্থানের জায়গাটি না চিনতে পারে। বাবুই নলখাগড়া ও হোগলার বন দিয়ে বাসা বুনে। কিন্তু দেশে নলখাগড়া ও হোগলার বন কমে যাওয়ায় এ বাবুইয়ের সংখ্যা খুবই কম। যেসব নলখাগড়া ও হোগলার বনে মানুষের চলাচল থাকে এ পাখি যেখানে বাস করে। এরা সাধারণত খুটে খুটে বিভিন্ন ধরনের বীজ, ধান, ভাত, পোকা, ঘাস, ছোট উদ্ভিদের পাতা, ফুলের মধু-রেণু ইত্যাদি খেয়ে জীবনধারণ করে।


আরও পড়ুন - পদ্মা সেতুর চীনা শ্রমিকদের জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছিলো সজারু


“কিচির মিচির বার্ড ক্লাবের” সদস্য সদানন্দ মন্ডল জানান- এরা খুব সুন্দর বাসা বোনে বলে “তাঁতি পাখি” নামেও পরিচিত। এদের বাসার গঠন বেশ জটিল হলেও আকৃতি খুব সুন্দর। কয়েক প্রজাতির বাবুই একাধিক কক্ষবিশিষ্ট বাসা তৈরি করতে পারে। বাবুই পাখি দেশের সব গ্রামের তাল, নারকেল, খেজুর, রেইনট্রি গাছে বাসা বোনে বসবাস করে। তবে বুক কালো দাগি বাবুই নদ নদীর পাড়ে কাশবনে বসবাস করে। বেশিরভাগ বাবুই প্রজাতির পুরুষ সদস্য বেশ উজ্জ্বল রঙের হয়।

বাবুই পাখি বাসা তৈরি করার পর সঙ্গী খুঁজতে যায় অন্য বাসায়। সঙ্গী পছন্দ হলে পুরুষ বাবুই পাখি স্ত্রী বাবুই পাখিকে সাথী বানানোর জন্য ভাব-ভালোবাসা নিবেদন করে এবং বাসা তৈরির কাজ অর্ধেক হতেই স্ত্রী বাবুইকে কাঙ্খিত বাসা দেখায়। কারণ বাসা পছন্দ হলেই কেবল এদের সম্পর্ক গড়ে উঠবে। স্ত্রী বাবুই পাখির বাসা পছন্দ হলে বাকি কাজ শেষ করতে পুরুষ বাবুই পাখির সময় লাগে মাত্র চার থেকে পাঁচদিন।

একসময় দেশের বিভিন্ন জনপদে বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলে সারি সারি উঁচু তাল, খেজুর ও নারকেল গাছের পাতার সঙ্গে বাবুই পাখির দৃষ্টিনন্দন বাসা দেখা যেত। কালের বিবর্তনে এখন তা আর সচরাচর চোখে পড়ে না। বর্তমানে যেমন তালগাছসহ বিভিন্ন গাছ নির্বিচারে নিধন করা হচ্ছে। তেমনি হারিয়ে যাচ্ছে বাবুই পাখিও। একশ্রেণির মানুষ অর্থের লোভে বাবুই পাখির বাসা সংগ্রহ করে ধনীদের কাছে বিক্রি করছে। এ বাবুই পাখির বাসা শোভা পাচ্ছে ধনীদের ড্রইং রুমে। বাবুই পাখির এ শৈল্পিক নিদর্শনকে টিকিয়ে রাখার জন্য সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ করা দরকার বলে জানিয়েছেন কিচির মিচির সংগঠনটি।


আরও পড়ুন - আড্ডা ফেলে আহত পেঁচাটিকে বাঁচালেন তারা


বাংলাদেশ বন বিভাগের বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা জোহরা মিলা ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, সারাবিশ্বে ১১৭ প্রকার বাবুই পাওয়া গেলেও বাংলাদেশে মাত্র তিন প্রজাতির বাবুই পাখির দেখা মেলে। যদিও এই তিন প্রজাতির বাবুই পাখির দেখা পাওয়াও এখন দুষ্কর। পরিবেশ বিপর্যয়, তাল, নারকেল, খেজুর, রেইনট্রি গাছের ক্রমবিলুপ্তি, বাবুইয়ের বাসা ভেঙে ফেলা, নির্বিচার শিকার ইত্যাদি কারণে সুন্দর এই পাখি দেশ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে।

প্রকৃতির সুন্দর এই পাখিটিকে রক্ষার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, “বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনের এক নম্বর তফসিল অনুযায়ী এই পাখিটি সংরক্ষিত। তাই এটি শিকার, হত্যা বা এর কোনো ক্ষতি করা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।”