• সোমবার, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:৩৭ দুপুর

বিশ্ব ইজতেমায় আরও দুই মুসল্লির মৃত্যু

  • প্রকাশিত ০২:৪০ দুপুর জানুয়ারী ১০, ২০২০
ইজতেমা
ইজতেমায় অংশ নিতে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজার হাজার মুসল্লি সমবেত হয়েছেন। ঢাকা ট্রিবিউন

এ নিয়ে চলতি বছর চার মুসল্লির মৃত্যু হলো

টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দেওয়া আরও দুই মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে।

মৃতরা হলেন- সিরাজগঞ্জের কাজীপুর উপজেলার খোকা মিয়া (৬০) ও চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার মোহাম্মদ আলী (৭০)। এ নিয়ে চলতি বছর চার মুসল্লির মৃত্যু হলো।

তুরাগ থানার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদ হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে ইজতেমা মাঠে খোকা মিয়া (৬০) নামে এক মুসল্লি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে দ্রুত টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অন্যদিকে, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১টার দিকে মোহাম্মদ আলী নিজ নিজ তাঁবুতে মারা যান। এছাড়া শুক্রবার সকালে শহিদুল ইসলাম (৫৫) নামে অপর এক মুসল্লির মৃত্যু হয়। শহিদুলের বাড়ি নওগাঁ জেলায়।

এর আগে বৃহস্পতিবার সকালে গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়া এলাকার ইয়াকুব শিকদার (৮৫) নামের এক মুসল্লি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) ভোরে ফজরের নামাযের পর পাকিস্তানের মাওলানা ওবায়দুল খোরশেদের আম বয়ানের মধ্য দিয়ে ৫৫তম ইজতেমার আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়।

তিনদিনের প্রথম পর্বের ইজতেমা ১২ জানুয়ারি শেষ হবে। চারদিন বিরতি দিয়ে ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বটি ১৭ থেকে ১৯ জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হবে। ওই ইজতেমায় মাওলানা সা’দ অনুসারীর মুসল্লিগণ অংশ নেবেন।


আরও পড়ুন - বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শুরু


১৯৬৭ সাল থেকে টঙ্গীর ইজতেমা মাঠে তাবলিগ জামাত বিশ্ব ইজতেমার আয়োজন করে আসছে। ইজতেমা মাঠের চাপ কমাতে এবং নিরাপত্তা ও উন্নত ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে ২০১১ সাল থেকে দুই ধাপে ইজতেমার আয়োজন হয়ে আসছে।

এদিকে, প্রথম পর্বের ইজতেমার প্রথম দিনে শুক্রবার লাখো মুসল্লি একসঙ্গে জুমার নামাজ আদায় করেছেন। তাবলিগ জামাতের মুসল্লি ছাড়াও ঢাকা, উত্তরা, টঙ্গী ও গাজীপুরসহ আশপাশের লাখ লাখ মুসল্লি জুমার নামাজে অংশ নেন।

ইজতেমা ময়দানে দেশের সর্ববৃহৎ জুমার নামাজে খুতবা পাঠ শুরু হয় দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে। নামাজ শুরু হয় ১টা ৪০ মিনিটে। এতে ইমামতি করেন রাজধানীর কাকরাইল মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ জুবায়ের।

দুপুর ১২টার দিকে ইজতেমার পুরো ময়দান পূর্ণ হয়ে যায়। মাঠে স্থান না পেয়ে অনেক মুসল্লিরা বাড়ির ছাদ, নৌকা, গাড়ির ছাদে মহাসড়ক ও অলি-গলিসহ যে যেখানে সম্ভব সেখানেই পাটি, চটের বস্তা ও খবরের কাগজ বিছিয়ে জুমার নামাজে শরিক হন। এর আগে সকাল থেকে ইজতেমামুখী মুসল্লির ঢল নামে টঙ্গীর তুরাগ তীরে।

নামাজ শেষে দেশ ও জাতির শান্তি-সমৃদ্ধি কামনা করে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।