• মঙ্গলবার, এপ্রিল ০৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১০ সকাল

জুনিয়রকে অপমান করায় খুন!

  • প্রকাশিত ০৪:০১ বিকেল জানুয়ারী ১১, ২০২০
লাশ

এসময় নিহতের ঘাড়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাত ও বামচোখ উপড়ে ফেলার চিহ্ন ছিল

নাটোর সদর উপজেলার  হালসা এলাকায় জুনিয়রকে অপমানের করার জেরে খুন হয়েছেন নাটোরের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়েরর এক শিক্ষার্থী।

শনিবার (১১ জানুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে  এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান পুলিশ সুপার (এসপি) লিটন কুমার সাহা।

মামলাটি প্রসঙ্গে ওই থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) সামসুজ্জোহা জানান, ৫ জানুয়ারি রাত ৯টার দিকে উদ্ধার করা হয় সদর উপজেলার হালসার নবীনকৃষ্ণপুর গ্রামের আফাজ উদ্দিনের ছেলে ও নাটোরের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী ইউনিভার্সিটি অব সাইন্স এন্ড টেকনোলজির (আরএসটিইউ) বাণিজ্য অনুষদের ওই শিক্ষার্থীকে।  

এসময় নিহতের ঘাড়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাত ও বামচোখ উপড়ে ফেলার চিহ্ন ছিল। এঘটনায় নিহতের বোন রেহেনা বেগম বাদী হয়ে সন্দেহভাজন ৫ জনের নামসহ অজ্ঞাত কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে।

পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা জানান,“মামলার সূত্রধরে জেলাপুলিশ ও গোয়েন্দা দল হত্যারহস্য উদঘাটন ও খুনিকে গ্রেফতারে মাঠে নামে। এরই এক পর্যায়ে মূল আসামি নাটোরের নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা সরকারি অনার্স কলেজ শিক্ষার্থী মিনহাজ হোসেনকে (২০) গ্রেফতার করা হয়।”

মিনহাজ জানিয়েছে, বেশ কিছুদিন আগে কামরুল তার জুনিয়র মিনহাজের চোখ উপড়ে ফেলার হুমকি দেয়। এতে সে ক্ষুব্ধ হয়ে নিহত কামরুলকে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করে।

এরপর গত ৪ জানুয়ারি কামরুলকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে হত্যা করে মিনহাজ।

এদিকে কামরুলকে খুঁজে না পাওয়ায় পরদিন ৫ জানুয়ারি সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি করে নিহতের পরিবার।  এরপর একইদিন বিকেলে শিশুরা খেলতে যেয়ে ঘাসের মধ্যে নিহতের মরদেহ দেখতে পায়। পরে তার লাশ সনাক্ত করে নিহতের পরিবার।