• সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪০ রাত

শাহবাগে অস্ত্র হাতে আন্দোলনকারীদের ওপর চড়াও, অতঃপর উত্তম-মধ্যম

  • প্রকাশিত ০৬:২২ সন্ধ্যা জানুয়ারী ১৫, ২০২০
ঢাবি
পিস্তল তাক করলে ক্ষিপ্ত হয়ে মারধর শুরু করেন আন্দোলনকারীরা। মেহেদি হাসান/ঢাকা ট্রিবিউন

 এ সময় আলিফ রুশদি হাসান মুন নামের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

আসন্ন ৩০ জানুয়ারি ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন পেছানোর দাবিতে শাহবাগ মোড় অবরোধ করা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অস্ত্র দেখিয়ে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় আলিফ রুশদি হাসান মুন (৩৬) নামের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে শিক্ষার্থীরা। 

বুধবার (১৫ জানুয়ারি) দুপুরে শাহবাগ মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। 

জগন্নাথ হল ছাত্র সংসদের সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক কানজিলাল ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন,  “শাহবাগ মোড় অবরোধ চলাকালে একজন ব্যক্তি একটি কালো টয়োটা অ্যালিয়েন গাড়ি নিয়ে সেখানে আসেন এবং অবরোধ ভেঙে তাকে যাওয়ার সুযোগ দেওয়ার দাবি করেন। কিন্তু অবরোধকারী শিক্ষার্থীরা তার দাবি অগ্রাহ্য করলে তিনি শিক্ষার্থীদের দিকে পিস্তল তাক করেন।” 

তিনি আরও বলেন, “আমি দেখলাম তিনি আন্দোলকারীদের দিকে পিস্তল তাক করেছেন, বিষয়টি ছাত্রদের ভীষণ ক্ষেপিয়ে তোলে এবং তারা ওই ব্যক্তিকে মারধর করতে শুরু করে।” 

এ সময় পুলিশ ঘটনাস্থলে ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে। পরে গাড়িটি তল্লাশি করে একটি শটগান পাওয়া যায়। গাড়ির সামনের কাঁচে ধানমন্ডি শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের একটি স্টিকারও রয়েছে।   

পুলিশ জানায়, ওই ব্যক্তির নাম আলিফ রুশদি হাসান (৩৬)। এ সময় গাড়িতে রুশদির সঙ্গে ছিলেন তার স্ত্রী ও শ্যালিকা। তাদের সবাইকে শাহবাগ থানায় নেওয়া হয়েছে।   

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের রমনা জোনের সহকারী কমিশনার এইচএম আজিমুল হক সাংবাদিকদের বলেন, “শিক্ষার্থীদের সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনাটি শুনেছি। আমরা বিষয়টি তদন্ত করছি। গাড়িটি থেকে লাইসেন্স করা একটি শটগানও উদ্ধার করা হয়েছে।” 

এদিকে শাহবাগ থানার পরিদর্শক পদমর্যাদার একজন পুলিশ অফিসার ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, যে পিস্তলটি দিয়ে আন্দোলনকারীদের হুমকি দেওয়া হয়েছিল, সেটি শিক্ষার্থীরা থানায় হস্তান্তর করেছে।   

শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “ওই ব্যক্তি আমাদেরকে জানিয়েছেন, তিনি আদম ব্যবসায় জড়িত।”