• সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪০ রাত

আমরণ অনশনে গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫০ শিক্ষার্থী

  • প্রকাশিত ০৬:৫৭ সন্ধ্যা জানুয়ারী ১৫, ২০২০
গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় আন্দোলন
বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে আমরণ অনশনে বসেছেন গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫০ শিক্ষার্থী ঢাকা ট্রিবিউন

তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহজাহান বলেন, নতুন উপাচার্য নিয়োগ না হওয়া পর্যন্ত কিছুই করা সম্ভব নয়

আমরণ অনশন শুরু করেছেন গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইটিই) বিভাগের ৫০ শিক্ষার্থী। তাদের দাবি, বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের সঙ্গে নিজেদের বিভাগকে একীভূত করা।

বুধবার (১৫ জানুয়ারি) বেলা ১১টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে অনশন শুরু করেন তারা। অন্যদিকে, তিন দফা দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৭৬ জন অস্থায়ী কর্মচারী।

অনশনে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থী ইটিই বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী শিহাব শাহারিয়ার বলেন, আমরা ইটিই বিভাগকে ইইই বিভাগের সঙ্গে একীভূতকরণের দাবিতে ৯০ দিন ধরে শান্তিপূর্ণ অবস্থান কর্মসূচি পালন করে আসছি। কিন্তু আমাদের দাবি মেনে নেয়নি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তাই আমরা আমরণ অনশনের ডাক দিয়েছি।


আরও পড়ুন - আমরণ অনশনে গোপালগঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫০ শিক্ষার্থী


বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী কর্মচারী মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আমাদের তিন দফা দাবি না মানা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। দাবি তিনটি হচ্ছে- ৩ মাসের বকেয়া বেতন পরিশোধ, চাকরি স্থায়ীকরণ ও দৈনিক মজুরি ভিত্তিতে কর্মচারীর স্থায়ী নীতিমালাকরণ।

উভয় বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহজাহান বলেন, নতুন উপাচার্য নিয়োগ না হওয়া পর্যন্ত কিছুই করা সম্ভব নয়।

প্রসঙ্গত, গত ১৮ অক্টোবর থেকে ইটিই বিভাগ ও ৮ ডিসেম্বর থেকে ১৭৬ জন অস্থায়ী কর্মচারী বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন।