• সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:৪০ রাত

মদ্যপ অবস্থায় প্রাইভেট কার চালানোয় যশোরের দুর্ঘটনা!

  • প্রকাশিত ০৬:৩০ সন্ধ্যা জানুয়ারী ১৮, ২০২০
সড়ক দুর্ঘটনা
যশোর শহরে ১৭ জানুয়ারি দিবাগত রাতে সড়ক দুর্ঘটনায় তিন নারীর নিহত হন।সংগৃহীত

আগামী ২৩ জানুয়ারি পিয়াসার বিবাহোত্তর সংবর্ধনার কথা ছিল

যশোর শহরে সড়ক দুর্ঘটনায় তিন নারীর নিহত হওয়ার ঘটনার কারণ হিসেবে মদ্যপ অবস্থায় প্রাইভেট কার চালানোকেই প্রাথমিকভাবে মনে করছে পুলিশ। শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে শহরের শহীদ মশিউর রহমান সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। 

এই ঘটনায় গাড়িচালক ও নিহত তনিমা ইয়াসমিন পিয়াসার (২৫) স্বামী শফিকুল ইসলাম জ্যোতিকে আটক করা হয়েছে। 

নিহত অপর দুজন হলেন-শহরের ঢাকা রোডের বিসিএমসি কলেজ এলাকার ইয়াসিন আলীর মেয়ে তানজিলা ইয়াসমিন (২৮) ও তনিমা ইয়াসমিন পিয়াসার খালাতো ভাই আরএন রোড এলাকার মঞ্জুর হোসেনের স্ত্রী আফরোজা তাবাসসুম তিথী (২৬)।

এঘটনায় আহত হয়েছে-পিয়াসার স্বামী শফিকুল ইসলাম জ্যোতি (২৮), আফরোজা তাবাসসুম তিথীর মেয়ে মানিজুর (৩), শাহিন হোসেন (২৩) ও হৃদয় (২৮)।

যশোর কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক শেখ তাসমীম আলম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, "দিবাগত রাত ১টার দিকে পুলিশ কন্ট্রোল রুম ও জাতীয় জরুরি সেবার নম্বর থেকে আমরা জানতে পারি, শহরের শহীদ মশিউর রহমান সড়কে একটি প্রাইভেটকার দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে। তথ্য পেয়েই পুলিশের রাত্রিকালীন দুটি টহল টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। এরপর সেখানে আমিও যাই। ওই প্রাইভেটকারে তিনজন পুরুষ, তিনজন নারী ও একটি শিশু ছিল।" 

পুলিশের এই কর্মকর্তার আরও জানান, ওই সড়কের সাবেক কাস্টমস কমিশনার জিএম কামালের বাড়ির প্রাচীর ও বিদ্যুতের খুঁটিতে সজোরে আঘাত করে প্রাইভেট কারটি। বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোর কারণেই এই দুর্ঘটনাটি ঘটে বলে ধারণা করা হচ্ছে।  

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, "মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালাচ্ছিলেন মেয়েটির (পিয়াসা) স্বামী  শফিকুল ইসলাম জ্যোতি। জ্যোতি পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন বিষয়টি। রাতেই তাকে আটক করা হয়। জ্যোতি সুস্থ আছেন এবং গাড়িটি পুলিশ হেফাজতে রয়েছে।" 

স্থানীয় এক বাসিন্দা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, শুক্রবার সকালে ঢাকা থেকে নিজস্ব প্রাইভেটকার চালিয়ে যশোরে আসেন জ্যোতি। আবার রাতে গাড়ি চালানোয় ক্লান্তির কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।  

ইয়াসিন আলীর ভাই ও নিহত দুইবোনের চাচা আবদুল কাদের জানিয়েছেন, আগামী ২৩ জানুয়ারি তার ভাতিজি পিয়াসার বিবাহোত্তর সংবর্ধনার কথা ছিল।

পিয়াসার মামা শাহিনুর রহমান ঠাণ্ডু সাংবাদিকদের জানান, শহরের লোন অফিসপাড়া এলাকার ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম জ্যোতির সঙ্গে আদদ্বীন সখিনা মেডিকেল কলেজের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী তনিমা ইয়াসমিন পিয়াসার দেড় বছর আগে বিয়ে হয়। আগামী ২৩ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে পিয়াসাকে তাদের তুলে নেওয়ার কথা ছিল। সে জন্য জ্যোতির বাড়িতে আলোকসজ্জা করা হয়। পিয়াসা রাতে ফোন করে জ্যোতিকে জানান, তারা আলোকসজ্জা দেখবেন এবং শহর ঘুরবেন। একারণে শুক্রবার রাত ১০টার দিকে জ্যোতি তার নিজস্ব প্রাইভেটকারটি নিয়ে বের হন। তারা রাতে আলোকসজ্জা দেখে স্বজনদের দাওয়াত দিয়ে রাত সাড়ে ১২টার দিকে শহরের পালবাড়ি এলাকা থেকে বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন।