• শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:০২ রাত

ঢাবিতে শিবির সন্দেহে হলের ভেতর ৪ ছাত্রলীগ কর্মীকে মারধর

  • প্রকাশিত ০৪:৪১ বিকেল জানুয়ারী ২২, ২০২০
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
ফাইল ছবি

দুপুর দেড়টার দিকে তাদেরকে ছেড়ে দেয় পুলিশ। তারপর থেকে তাদের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল শাখা ছাত্রলীগের চার কর্মীকে শিবির সন্দেহে মারধরের পর শাহবাগ থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারি) দিবাগত রাত ১২টা থেকে ১টার মধ্যে কোনো এক সময়ে হলের গেস্টরুমে তাদেরকে মারধর করা হয়।

মারধরের শিকার ছাত্রলীগ কর্মীরা হলেন- পলিটিক্যাল সায়েন্স তৃতীয় বর্ষের ছাত্র সানোয়ার হোসেন, ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র মো. মুনিম চৌধুরী, ইসলামিক হিস্টোরি অ্যান্ড কালচার বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র মিনহাজ উদ্দিন এবং আরবি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের আফসার উদ্দিন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আনোয়ার হোসেন ও সহ-সাধারণ সম্পাদক আমির হামজার নেতৃত্বে তাদেরকে ক্রিকেট স্ট্যাম্প ও লাঠিসোটা দিয়ে মারধরের পর  রাত দুইটার দিকে তাদেরকে শাহবাগ থানায় সোপর্দ করা হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পুলিশ তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসার পর থানায় নিয়ে আসে। 

তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ না থাকায় বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়। ঢাকা ট্রিবিউনকে বিষয়টি নিশ্চিত করে শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান জানিয়েছেন, “দুপুর দেড়টার দিকে তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তারপর থেকে তাদের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।”

সানোয়ার ও আফসারের স্বজনরা জানান, তাদেরকে ফোনে পাওয়া যাচ্ছে না। আমরা জানি না কোথায় আছে। 

হলের বন্ধুরাও তাদের কোনো সন্ধান দিতে পারেননি।

তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর গোলাম রাব্বানী বলেন, “তাদেরকে মারধর করা হয়নি। প্রক্টরিয়াল বডির সহায়তায় হল কর্তৃপক্ষ তাদেরকে থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।”

তবে ওই ৪ জনের সঙ্গে শিবিরের কোনো সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে কি না সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি পুলিশ।

ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, “মারধরের বিষয়ে আমার জানা নেই। কোনোভাবেই কাউকে মারধরের বিষয়টি বরদাশত করা হবে না।”