• শুক্রবার, এপ্রিল ০৩, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:০৪ দুপুর

প্রেমের টানে বরিশাল থেকে রাজশাহী, গিয়ে হলেন ‘গরুচোর’!

  • প্রকাশিত ১০:২৯ সকাল ফেব্রুয়ারি ৬, ২০২০
রাজশাহী

তাদের দাবি, এলাকাবাসী মনে করেছিল, গরু চুরির সন্দেহ থেকে বাঁচতেই তারা প্রেমের নাটক সাজিয়েছেন

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলায় “গরুচোর” সন্দেহে দুই যুবককে আটক করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয়রা। এক কিশোরীর (১৬) সঙ্গে মুঠোফোনে প্রেমের সূত্রে দেখা করতে দক্ষিণবঙ্গ থেকে তারা উত্তরবঙ্গে গিয়েছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। এলাকাবাসীর হাতে আটক হওয়ার পর তাদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছে ওই কিশোরীর পরিবার।

মঙ্গলবার রাতে বরিশালের উজিরপুর হাসিব বিশ্বাস (২২) ও ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার রবিউল ইসলাম (২০) নামে ওই দুই যুবককে আটক করা হয়। বুধবার (৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে কিশোরীর নানা বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন। আদালত তাদেরকে কারাগারে পাঠিয়েছে।

রবিউল ও হাসিব পুলিশকে জানিয়েছেন, মুঠোফোনে প্রেমের সূত্রে হাসিব ওই কিশোরীর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন। আর সঙ্গে নিয়ে গিয়েছিলেন রবিউলকে। এই দুই তরুণের মধ্যে আত্মীয়তার সম্পর্ক রয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে দুই যুবক গোদাগাড়ীর ওই কিশোরীদের বাড়িতে ঢোকার চেষ্টা করলে বাড়ির লোকজন বিষয়টি টের পেয়ে গরুচোর সন্দেহে তাদের ধাওয়া দেয়। সেখান থেকে দৌড়ে পালালেও কয়েক কিলোমিটার দূরের গ্রাম বিজয়নগরের স্থানীয়দের হাতে ধরা পড়েন তারা। বাড়ি বরিশালে শুনে এলাকাবাসীর সন্দেহ আরও বেড়ে যায়। পরে গরুচোর ধরা পড়েছে বলে পুলিশে খবর দেওয়া হয়।

পুলিশকে রবিউল জানিয়েছেন, ওই বাড়ির একটি মেয়ের সঙ্গে মুঠোফোনে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। মেয়েটির বাবার বাড়ি শরীয়তপুরে। বাবা বিদেশে থাকায় সে মায়ের সঙ্গে গোদাগাড়ীতে নানাবাড়িতে থাকে। মেয়েটির সঙ্গে যোগাযোগ করেই তিনি সেখানে গিয়েছিলেন। কিন্তু এলাকাবাসী মনে করেছিল, গরু চুরির সন্দেহ থেকে বাঁচতেই তারা প্রেমের নাটক সাজিয়েছেন।

গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খাইরুল ইসলাম বলেন, ওই দুই যুবকের নামে কিশোরীর নানা অপহরণ মামলা করেছেন। মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হলে আদালত তাদের কারাগারে পাঠিয়েছে।

ওসি আরও বলেন, মেয়েটি অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় আইনি প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি) পাঠানো হয়েছে।