• বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ০২, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১৫ সকাল

ভারতে বিএসএফের নির্যাতনে বাংলাদেশির ‘মৃত্যু’

  • প্রকাশিত ১০:৪৮ রাত ফেব্রুয়ারি ৬, ২০২০
বিএসএফ
ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী- বিএসএফ। ফাইল ছবি/রয়টার্স

লালমনিরহাট-১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের পরিচালক লে. কর্ণেল এসএম তৌহিদুল আলম বাংলাদেশিকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করলেও নিহতের খবর নিশ্চিত করেননি

লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার দুর্গাপুর সীমান্তে ভারতীয় বিএসএফের হাতে আটকাবস্থায় দেলদার হোসেন ওরফে দিলবার (২৯) নামে এক বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে।

গত ২২ জানুয়ারি আদিতমারী উপজেলার দুর্গাপুর সীমান্তের মেইন সীমান্ত পিলার ৯২৪ এর ১০ সাবপিলার এলাকা থেকে দিলবারকে ধরে নিয়ে গিয়েছিল বিএসএফ।

পরে এ বিষয়ে আদিতমারী থানায় নিখোঁজ সংক্রান্ত একটি সাধারণ ডায়েরি হলে বৃস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বিষয়টি জানাজানি হয়।

তবে লালমনিরহাট-১৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের পরিচালক লে. কর্ণেল এসএম তৌহিদুল আলম আটকের বিষয়ে নিশ্চিত করলেও নিহতের খবর নিশ্চিত করেননি। 

বিএসএফের হাতে দিলবার আটকের ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে আদিতমারী থানায় “নিখোঁজ” মর্মে একটি সাধারণ ডায়েরি করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদিতমারী থানার ওসি মো. সাইফুল ইসলাম।

তিনি বলেন, “আদিতমারী উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের দূর্গাপুর এলাকার খয়বর আলীর ছেলে নিখোঁজ দেলদার হোসেন ওরফে দিলবারকে(২৯) গত ২১ জানুয়ারি থেকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না মর্মে তার ভগ্নিপতি ইসমাইল হোসেন ৫ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১টার দিকে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। ভারতে বিএসএফের হাতে আটক হয়েছে মর্মে ওই সাধারণ ডায়েরিতে কোনো কথা উল্লেখ করা নেই।”

জানতে চাইলে দিলবারের স্ত্রী বিলকিস বেগম বলেন, আমি ৫ বছর বয়সী মেয়ে দিলুফা খাতুনকে নিয়ে বাবার বাড়িতে ছিলাম। আমার স্বামীর মাথায় সমস্যা আছে। সে কোথায় গেছে আমরা খোঁজাখুজি করে পাচ্ছিলাম না। পরে ৫ ফেব্রুয়ারি আদিতমারী থানায় একটি জিডি করা হয়। এরপর জানতে পারি আমার স্বামী ভারতে বিএসএফের হাতে আটক হয়েছে। পরে জানতে পারি বিএসএফের নির্যাতনে ও নাকি মারা গেছে। এখন মরদেহ কোচবিহার হাসপাতালে আছে। আমি বিজিবির নিকট সাহায্য চেয়েছি।

জানতে চাইলে লালমনিরহাট ১৫-বিজিবি ব্যাটালিয়নের পরিচালক লে. কর্নেল এসএম তৌহিদুল ইসলাম বলেন, “ভারতীয় কোচবিহার রানীনগর-১০০ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের কদমা বিএসএফ কোম্পানি কমান্ডারে মাধ্যমে জানা গেছে গত ২২ জানুয়ারি দিলবার হোসেন নামে এক বাংলাদেশিকে তারা আটক করেছিল। শুক্রবার (৭ ফেব্রুয়ারি) বিজিবি-বিএসএফ পতাকা বৈঠকের পর আমরা নিশ্চিত হওয়া যাবে ওই বাংলাদেশি নিহত না জীবিত রয়েছে।”