• রবিবার, এপ্রিল ০৫, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৩৩ রাত

সয়াবিন তেলের বর্জ্যে দগ্ধ স্কুলছাত্রের মৃত্যু

  • প্রকাশিত ০৭:৫০ রাত ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২০
আশরাফুল-নারায়ণগঞ্জ-সয়াবিন
নারায়ণগঞ্জে রাস্তার পাশে ফেলে রাখা সয়াবিন বর্জ্যে পড়ে দগ্ধ স্কুলছাত্র আশরাফুল চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে ঢাকা ট্রিবিউন

ইটভাটায় বিক্রির জন্য ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের খোলা জায়গায় ফেলে রাখা হয় সয়াবিন বর্জ্য

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে রাস্তার পাশে ফেলে রাখা সয়াবিন তেলের বর্জ্যে দগ্ধ স্কুলছাত্র আশরাফুল হোসেন (১২) ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। সে রূপসী এলাকার বাবুল মোল্লার ছেলে ও হাজী মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি) ভোরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। 

গত ৬ ফেব্রুয়ারি বিকেলে স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের রূপসী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ফেলে রাখা সয়াবিন তেলের বর্জ্যে পড়ে আশরাফুল ও একই বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র নাজিম গুরুতর দগ্ধ হয়। তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। 

আশরাফুলের বাবা বাবুল মিয়া জানান, গত ৬ ফেব্রুয়ারি রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় আশরাফুল ইসলাম সয়াবিন তেলের উত্তপ্ত বর্জ্যের মধ্যে পড়ে যায়। তার চিৎকারে বন্ধু নাজিম মিয়া বাচাঁতে গেলে সে-ও বর্জ্যে পড়ে দগ্ধ হয়। স্বজনরা তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সোমবার ভোরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় আশরাফুল।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, তারাবো পৌর যুবলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল আউয়াল, কাজীরপাড়া এলাকার জাফর কাজী, সাজ্জাত, নোয়াপাড়া এলাকা শাহজাহান ও রাজীব রূপচাঁদা এডিবয়েল অয়েল কারখানা থেকে গরম সয়াবিনের বর্জ্য কিনে বিভিন্ন ইট ভাটায় বিক্রি করেন। কোনো ধরনের বেষ্টণী ছাড়াই এই বর্জ্য ফেলে রাখা হয় রূপসী খন্দকার বাড়ি এলাকায় রাস্তার পাশে। প্রায়ই এই উত্তপ্ত বর্জ্যের কারণে দুর্ঘটনার ঘটনা ঘটছে।

গত ৭ ফেব্রুয়ারি রাতে গোলাকান্দাইল ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা আরিফ হাসান ও ৩ ফেব্রুয়ারি রাতে আফতাব ফিড কারখানার শ্রমিক প্রদীপ চন্দ্র রূপচাঁদা একই জায়গায় দগ্ধ হয়েছিলেন। গত ২ ফেব্রুয়ারি রুমি আক্তার নামে এক তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীও সয়াবিনের বর্জ্যে পড়ে গিয়ে দগ্ধ হয়েছিল। সে-ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল হাসান জানান, আশরাফুলের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা মামলা করতে রাজি হয়নি।