• মঙ্গলবার, এপ্রিল ০৭, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫৭ রাত

চট্টগ্রামে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ ৩

  • প্রকাশিত ১০:৫৮ রাত ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২০
গ্যাস-সিলিন্ডার
পিক্সাবে

আহত তিনজনের মধ্যে গোলাম মাওলার শ্বাসনালীসহ ৬৫ শতাংশ ও মিজানের শরীরের ৫০ শতাংশ পুড়ে গেছে। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক


চট্টগ্রাম মহানগরীর আগ্রাবাদ মোগলটুলি এলাকার একটি বাসায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে তিনজন দগ্ধ হয়েছে।

সোমবার (১০ জানুয়ারি) বেলা ১১টার দিকে কর্মাস কলেজ রোডে আর বি ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ সংলগ্ন একটি বাসায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দগ্ধ ব্যক্তিরা হলেন- সদরঘাট থানাধীন কমার্স কলেজ রোডের কাটা বট গাছ এলাকার শাহাদাত ভূঁইয়া (৫৫), একই এলাকার গোলাম মাওলা (৫১) এবং চৌমুহনীর মতিয়ার পুল এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে মো. মিজান (৩৮)।

ভাড়া বাসায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেন দগ্ধ শাহাদাত ভূঁইয়ার চাচাতো ভাই ফারুক ভূঁইয়া।

আগ্রাবাদ ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেন, বিস্ফোরণের খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। সিলিন্ডারের সাথে থাকা পাইপ সেখানে পাওয়া গেলেও কোনো সিলিন্ডার পাওয়া যায়নি। পরে তাদের আহত অবস্থায় উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সহকারী পরিদর্শক (এসআই) জহিরুল হক জানান, বিস্ফোরণে দগ্ধ তিনজনকে চমেক হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। তাদের মধ্যে গোলাম মাওলার অবস্থা আশংকাজনক। অন্য দুজনের শরীরের ৪০ শতাংশ পুড়ে গেছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর তাদেরকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সহকারী অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ খালেদ বলেন, “আহত তিনজনের মধ্যে দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের শ্বাসনালীসহ শরীরের বেশিরভাগ অংশ পুড়ে গেছে। গোলাম মাওলার ৬৫ শতাংশ ও মিজানের শরীরের ৫০ শতাংশ পুড়ে গেছে। এছাড়া আরেকজনের মুখসহ শরীরের ২৫ শতাংশ পুড়ে গেছে।”

তিনি আরও জানান, বার্ন ইউনিটে কোনো আইসিইউ না থাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদের ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।