• শুক্রবার, এপ্রিল ০৩, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:৫৩ দুপুর

ডিম পেড়েছে কালিম পাখি

  • প্রকাশিত ০৮:৩৭ রাত ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০
মৌলভীবাজার-কালিম
পাঁচ দিনে ৫টি ডিম পেড়েছে পাখিটি। ঢাকা ট্রিবিউন

আইনগতভাবে কালিম পাখি খাঁচায় বা অন্য কোনোভাবে লালন-পালন দণ্ডনীয় অপরাধ। এ বিষয়ে পোষাপাখি বিধিমালা নামে নতুন আইন হচ্ছে

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে আবারও ডিম দিয়েছে একটি কালিম পাখি। গত পাঁচ দিনে একে একে ৫টি ডিম পেড়েছে পাখিটি। শরীরের লোমের ফাঁক দিয়ে একটি ডিমের প্রায় পুরোটাই দেখা যায়। ডিমগুলোর রং সাদা। রাজহাঁসের ডিমের মতো এর আকৃতি।

বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব জানান, গত শনিবার থেকে কালিম পাখিটি ডিম দেওয়া শুরু করে। ঐ পাখিটি এ পর্যন্ত ৫টি দিয়েছে। ডিম ফুটতে সময় লাগে ১৮-২০ দিন। ডিমে তা দেওয়ার দায়িত্ব স্ত্রী পাখির ওপরে বর্তালেও ওই সময়ে পুরুষ পাখিটি বাসার কাছাকাছি থেকে স্ত্রী পাখিকে সঙ্গ দেয়।

তিনি আরও জানান, এর আগেও ওই পাখিটি চার বছরে চারবার ডিম থেকে বাচ্চা ফুটিয়েছে।


আরও পড়ুন - সেই বন বিড়ালটি ফিরে গেলো বনে


জলাভূমির পাখি কালিম। জল-ডাঙায় বিচরণের জন্য দুঃসাহসী, লড়াকু ও মারকুটে স্বভাবের। এ পাখির আরও এক বৈশিষ্ট্য আছে। পোষ মানলে আর উড়ে যায় না। এরা আমাদের দেশীয় জলচর পাখি। স্বভাবে বুনো হলেও মোটামুটি পোষ মানে। মুক্ত অবস্থায় এরা দলবদ্ধভাবে বিচরণ করে। আবার একাকী বা জোড়ায় জোড়ায়ও বিচরণ করে। ওদের বিচরণক্ষেত্র জলাশয়ের জলদামের ওপর। আবার জলেও সাঁতার কাটে, তবে তুলনামূলকভাবে কম। জলকেলি ওদের ভীষণ পছন্দ। জলের ছোঁয়ায় রূপের ঝলক আরও বেড়ে যায়।

বাংলাদেশ বন বিভাগের বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা জোহরা মিলা ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “পাখিটির পুরো নাম বেগুনী কালিম (Purple Swamphen)। তবে এটি কালেম, কায়িম বা কাম পাখি নামেও পরিচিত। পাখিটি হাওর, বিল বা জলাশয়ের পাখি। পদ্ম, শাপলা বা বড় খাসপূর্ণ জলাভূমিতে এরা বেশি থাকে। এরা খুবই সামাজিক পাখি, দলবদ্ধ হয়ে বসবাস করে। পাখিটি খাবার হিসেবে ধান, গম, চাল, ঘাস, মাছ, শামুক ইত্যাদি খেলেও কচুরিপানা এদের প্রিয় খাদ্য। বছরে ৭ থেকে ১০টি ডিম দেয় এবং প্রাকৃতিকভাবেই বাচ্চা উৎপাদন করে পাখিটি।”


আরও পড়ুন - বনরুই পাচার ও বিলুপ্তি ঠেকাতে সরকারের পদক্ষেপ কি যথাযথ?


তিনি জানান, আইনগতভাবে কালিম পাখি খাঁচায় বা অন্য কোনোভাবে লালন-পালন দণ্ডনীয় অপরাধ। এ বিষয়ে পোষাপাখি বিধিমালা নামে নতুন আইন হচ্ছে।   

জোহরা মিলা বলেন, “পৃথিবীর বেশিরভাগ দেশেই কালিমের দেখা পাওয়া যায়। বিগত কয়েকদশক ধরে সারা পৃথিবীতে কালিমের সংখ্যা কমে না গেলেও বাংলাদেশে জলাভূমি কমে যাওয়া এবং যত্রতত্র ফাঁদ পেতে শিকার করার ফলে পাখিটির হুমকির মুখে রয়েছে। যদিও আইইউসিএন এই প্রজাতিটিকে ন্যূনতম বিপদগ্রস্ত বলে ঘোষণা করেছে। বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইন-২০১২ অনুযায়ী পাখিটি সংরক্ষিত। তাই এটি শিকার বা এর কোনো ক্ষতি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।”  


আরও পড়ুন - মৌলভীবাজারে বিরল প্রজাতির লজ্জাবতী বানর উদ্ধার