• বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ০২, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:০৭ সকাল

'বৌমাকে আমার ছেলে ও তার মা মেরে ফেলেছে'

  • প্রকাশিত ০৭:৪২ রাত ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২০
লাশ

নিহতের শ্বশুর বলেন, 'আমি গরীর মানুষ, কিন্তু খুনি না। আমার ছেলে ও স্ত্রীর  বিচার হোক'

নড়াইল শহরে আশা খাতুন (২০) নামের এক নারীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামী ও শাশুড়ির বিরুদ্ধে। শুক্রবার (২১ ফেব্রুয়ারি) ভোরে শহরের দুর্গাপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় নিহত গৃহবধূ আশা খাতুনের বাবা মো. নুর ইসলাম বাদী হয়ে শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) নড়াইল সদর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

এদিকে অভিযুক্ত স্বামী রফিকুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে শাশুড়ি হনুফা বেগম এখনও পলাতক রয়েছেন। 

নিহতের পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, প্রায় একবছর আগে পারিবারিকভাবে নড়াইল পৌর এলাকার আব্দুল গাফফারের ছেলে রফিকুলের সঙ্গে বিয়ে হয় সদর উপজেলার হোসেনপুর গ্রামের মো. নুর ইসলামের মেয়ে আশা খাতুনের। বিয়ের পর থেকেই মাদকাসক্ত রফিকুল স্ত্রী আশা খাতুনের ওপর নির্যাতন করতেন। মাদক সেবনের দায়ে কয়েকবার জেলও খেটেছেন তিনি। 

নিহতের মা লাভলী বেগম বলেন, "আমার মেয়েকে মেরে ফেলার আগের দিনও আমার জামাই আর বেয়াইন আমার কাছ থেকে টাকা নিয়ে এসেছে। আমার মেয়েকে যেভাবে  মেরেছে, আমিও ওদের সে রকম শাস্তি চাই।"

এবিষয়ে নিহতের শ্বশুর গাফফার মোল্লা বলেন, "আমি তো পুলিশের সামনেই বলেছি যে, আমার ছেলে রফিকুল ও তার মা আমার বৌমাকে মেরে ফেলেছে। আমি গরিব মানুষ কিন্তু খুনি না। আমার ছেলে ও স্ত্রীর বিচার হোক।" 

নড়াইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইলিয়াস হোসেন বলেন, গৃহবধূ হত্যার ঘটনায় নড়াইল সদর থানায় হত্যা মামলা হয়েছে। মূল আসামি রফিকুলকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। অপর আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা করা হচ্ছে।