• শুক্রবার, এপ্রিল ০৩, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩৭ রাত

মৃত ব্যক্তিদের বয়স্ক-ভাতা খাচ্ছেন ইউপি চেয়ারম্যান!

  • প্রকাশিত ০৬:৪৪ সন্ধ্যা ফেব্রুয়ারি ২৯, ২০২০
টাঙ্গাইল

এমনকি ৯ বছর আগে মৃত্যু হওয়া ব্যক্তিদের বয়স্ক ভাতার কার্ড ব্যবহার করে টাকা উত্তোলনের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে

টাঙ্গাইলের ঘাটাইল ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হায়দার আলীর বিরুদ্ধে মৃত ব্যক্তিদের বয়স্ক ভাতা উত্তোলনের অভিযোগ উঠেছে। এমনকি ৯ বছর আগে মৃত্যু হওয়া ব্যক্তিদের বয়স্ক ভাতার কার্ড ব্যবহার করে টাকা উত্তোলনের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

জানা যায়, ঘাটাইল ইউনিয়নের আজাহের উদ্দীনের মৃত্যু হয়। কিন্তু এখনও তার নামে বয়স্ক ভাতা উত্তোলন করা হয়। তার স্ত্রী নার্গিছ বেওয়া মারা যান দুইবছর আগে। তবে, এখনও প্রতিমাসে বয়স্ক ভাতার টাকা উত্তোলন করা হয়। তাদের মতো এরকম ২৬ জনের নামের তালিকা পাওয়া গেছে।

মৃত আজাহের উদ্দীনের ছেলে মনির হোসেন বলেন, "বাবা মারা যাওয়ার পর তার বয়স্ক ভাতার কার্ড কে নিয়ে গেছে কিংবা কোথায় আছে আমরা কিছুই জানি না। বাবার নামে আসা টাকা ব্যাংক থেকে উত্তোলন কে করেন সেটা এখন জানতে ইচ্ছা করছে।"

মৃত নার্গিছ বেওয়ার বোন খোদেজা বেগম বলেন, "ইউপি সদস্য খলিল এসে নার্গিছের বয়স্ক ভাতার কার্ড নিয়ে যান। তারপর এব্যাপারে আর কিছুই জানি না।"

ইউপি মেম্বার মো. খলিল বলেন, "আজাহের মারা গেছেন আমি মেম্বার নির্বাচিত হওয়ার আগেই। ওই কার্ডের বিষয়ে কিছু জানি না। তবে নার্গিছ বেওয়ার কার্ড আমার কাছে আছে।"

ঘাটাইল ইউনিয়নে দীর্ঘদিন কারিগরি প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করা নাসরিন সুলতানা বলেন, "সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরাই ভাতাপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের মৃত্যুর তথ্য সরবরাহ করে থাকেন। তারাই প্রতিস্থাপনের তালিকা প্রস্তুত করে থাকেন।"

উপজেলা সমাজবেসা কর্মকর্তা আসাদুল ইসলাম বলেন, "যতক্ষণ না চেয়ারম্যান মৃত ব্যক্তির তথ্য ও বই ফেরত দেন, ততক্ষণ পর্যন্ত আমরা কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারি না। মৃত্যুসনদও দেন চেয়ারম্যান। আর ভাতা উত্তোলনের ক্ষেত্রে ভাতাপ্রাপ্তদের শনাক্ত করে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক। প্রতিটি ইউনিয়নে সবধরনের ভাতার সভাপতি থাকেন ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান।"

বয়স্কভাতা যাচাই বাছাই কার্যক্রমে ঘাটাইল ইউনিয়নের উপজেলা চেয়ারম্যানের প্রতিনিধি ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জহুরুল ইসলাম বলেন, "বয়স্কভাতা যাচাই বাছাই কার্যক্রমে আমি উপজেলা চেয়ারম্যানের প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত। কিন্তু ঘাটাইলের ইউপি চেয়ারম্যান এবিষয়ক কাজে আমাকে সাথে নেন না। ভাতাভোগী কেউ মারা গেলে সেই কার্ড চেয়ারম্যান নিয়ে নেন। কিন্তু মৃত্যুর তথ্য গোপন করে তাদের নামে নিজেই টাকা তোলেন তিনি।"

এব্যাপারে অভিযুক্ত ঘাটাইল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, "মৃত ব্যক্তিদের নামে বয়স্কভাতার টাকা উঠানো হয় আমার জানা নেই। এবিষয়ে আমি কিছু বলতে পারবো না।"

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, "এ ব্যাপারে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।"