• মঙ্গলবার, মার্চ ৩১, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:০১ দুপুর

ইটভাটার মাটি যোগাতে ফসলি জমিতে পুকুর খনন ‘উৎসব’

  • প্রকাশিত ০৮:২১ রাত মার্চ ৯, ২০২০
নওগাঁ
ইটভাটার মাটি যোগাতে ফসলি জমিতে পুকুর খনন। ঢাকা ট্রিবিউন

ইটভাটার মালিকরা তাদের প্রয়োজনে মাটি কেটে নিয়ে ফসলি জমিকে পুকুরে পরিণত করছে

“কৃষি জমির প্রকৃতি পরিবর্তন করা যাবে না” এমন সরকারি নীতিমালা থাকলেও সেই নীতিমালাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নওগাঁর আত্রাই উপজেলায় ফসলি জমিগুলোকে পুকুরে পরিণত করা হচ্ছে। এক শ্রেণির অসাধু ইটভাটা মালিকেরা বিভিন্ন মহলকে “ম্যানেজ” করে পুকুর খনন করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। খননকে ঘিরে আবার গড়ে উঠেছে পুকুর খনন ব্যবসায়ী যারা এলাকায় “পুকুর ব্যবসায়ী” হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন।

জানা গেছে, ইটভাটার মালিকরা তাদের প্রয়োজনে মাটি কেটে নিয়ে ফসলি জমিকে পুকুরে পরিণত করছে। এতে জমির মালিকেরা পুকুর খনন করতে খরচের পরির্বতে অতিরিক্ত টাকা পাচ্ছেন। এতে কৃষকেরা না বুঝেই তাদের পুকুরকে ইটভাটা মালিকদের হাতে তুলে দিচ্ছে। ফলে জেলায় দিন দিন কমেই চলেছে ফসলি জমি।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে জেলায় আবাদি জমির পরিমাণ ছিল ২ লাখ ৭২ হাজার ২৭৬ হেক্টর। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ছিল একই পরিমাণ। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ছিল ২ লাখ ৭৩ হাজার ৬১২ হেক্টর এবং ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে ছিল ২ লাখ ৭৩ হাজার ৯৯৮ হেক্টর। গত ৫ বছরে আবাদি জমির পরিমাণ কমেছে ১ হাজার ৭২২ হেক্টর। আত্রাই উপজেলায় বর্তমানে ফসলি জমির পরিমাণ ২৪ হাজার ১০০ হেক্টর। গত ৫ বছরের ব্যবধানে ২০০ হেক্টর আবাদি জমি কমেছে। অপরদিকে, বর্তমানে সরকারি পুকুর রয়েছে ২২৪ টি এবং ব্যক্তিগত পুকুর রয়েছে ২ হাজার ৮৩৭টি। গত ৫ বছরের ব্যবধানে ব্যক্তিগত পুকুরে বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় ২৫০টি।

উপজেলার হাটকালুপাড়া ইউনিয়নের দ্বীপ চাঁদপুর গ্রামে এলজিইডি রাস্তা সংলগ্ন প্রায় ২০ বিঘা এলাকা জুড়ে এস্কেভেটর দিয়ে পুকুর খনন করছেন গ্রামের সুমন তালুকদার। স্থানীয় মেসার্স এমইএম ইটভাটার মালিক আসাদুজ্জামান টপি মোল্লা ওই জমিতে পুকুর খনন করে তার ভাটায় মাটি নিয়ে যাচ্ছেন। একইভাবে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় পুকুর খনন করে তার ইটভাটায় মাটি নেওয়া হচ্ছে।

পুকুর ব্যবসায়ী সুমন তালুকদার বলেন, প্রতি বছর ২৮ হাজার টাকা বিঘা হিসেবে ১২ বছরের জন্য ১৫ বিঘা জমি ইজারা নিয়েছি। পুকুর খননের জন্য জেলা প্রশাসক বরাবর একটা আবেদন করেছি। এরপর জেলা প্রশাসন থেকে উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে কৃষি ও মৎস্য অফিসারকে প্রতিবেদন পাঠাতে বলা হয়। তবে তিনি জানান, অনুমোদন পাওয়ার আগেই পুকুর খনন করছেন তিনি।   

আত্রাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কেএম কাওছার হোসেন বলেন, ফসলি জমির পরিমাণ কমছে। গত দেড় মাসে পুকুর খনন বিষয়ে প্রায় ৪৪টির মতো প্রতিবেদন জেলা প্রশাসক বরাবর দিয়েছি। যেগুলোতে প্রায় এক ফসলের আবাদ হয়ে থাকে।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) আরিফ মুর্শেদ মিশু বলেন, “ডিসি স্যার যদি পুকুর খননের জন্য অনুমোতি দেয় তাহলে খনন করতে পারবে। দ্বীপচাঁদপুর গ্রামের পুকুর খননের প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে। তবে কি প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে তা বলা যাবে না।”

এ ব্যাপারে আত্রাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ছানাউল ইসলাম বলেন, “কেউ পুকুর খনন করতে চাইলে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করলে তিনিই বিষয়টি দেখবেন। এখানে আমাদের করার কিছু নেই।”

নওগাঁ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, “ঘরবাড়ি, ইটভাটা ও পুকুর খননের কারণে প্রতি বছরই কমছে আবাদি জমির পরিমাণ। অপরিকল্পিত ভাবে পুকুর খনন করা হচ্ছে। এটি একটি জাতীয় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। জেলা প্রশাসন, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও ভূমি মন্ত্রণালয় উদ্যোগ নিলে আবাদি জমি রক্ষা করা সম্ভব হবে।”