• মঙ্গলবার, মার্চ ৩১, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৪৮ সকাল

সাংবাদিক তুলে নেওয়ার ঘটনা খতিয়ে দেখবেন স্বরাষ্ট্র-জনপ্রশাসন মন্ত্রী

  • প্রকাশিত ০৩:৫৭ বিকেল মার্চ ১৪, ২০২০
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল ও জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন ঢাকা ট্রিবিউন

শুক্রবার (১৩ মার্চ) দিবাগত রাতে ঢাকা ট্রিবিউনের সংবাদিক আরিফুল ইসলামকে তুলে নিয়ে একবছরের জেল দেয় কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসনের মোবাইল কোর্ট

কুড়িগ্রামের নিজ বাড়ি থেকে ঢাকা ট্রিবিউন সাংবাদিক আরিফুল ইসলামকে তুলে নিয়ে একবছরের জেল দিয়েছে জেলা প্রশাসনের মোবাইল কোর্ট। শুক্রবার (১৩ মার্চ) দিবাগত রাতে আরিফুলকে জেলে পাঠানো হয় বলে নিশ্চিত করেছেন কুড়িগ্রাম কারাগারের জেলার মো. লুৎফর রহমান।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এপ্রসঙ্গে ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, সাধারণভাবে ভ্রাম্যমাণ আদালত এভাবে পরিচালনা করা যায় না। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আরও জানতে চাওয়া হয়, মধ্যরাতে কারও বাড়ির দরজা ভেঙে প্রবেশ করার এখতিয়ার ভ্রাম্যমাণ আদালতের আছে কিনা জানতে চাওয়া হয়। এর জবাবে তিনি বলেন, “আমি ওই ঘটনার বিষয়ে এখনও অবগত নই। তবে সেখানে আইনের কোনও ব্যত্যয় ঘটেছে কিনা খতিয়ে দেখা হবে।”   


আরও পড়ুন- ঢাকা ট্রিবিউন সাংবাদিককে রাতের আঁধারে তুলে নিয়ে একবছরের জেল


অন্যদিকে, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানান, তিনি ঘটনা সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। 

তিনি বলেন, কুড়িগ্রামের প্রশাসনিক কর্মকর্তারা আমাকে জানিয়েছেন, সেখানে একটি স্পেশাল টাস্কফোর্সের মাধ্যমে অভিযানটি চালানো হয়েছে। আর তা যেকোনও সময়ই পরিচালিত হতে পারে।”

তিনি আরও বলেন, “এবিষয়ে আর কোনও মন্তব্য করার আগে আমাকে জানতে হবে যে অভিযানটি পূর্বপরিকল্পিত ছিলো কিনা এবং ঘটনাস্থলে আসলে ঠিক কী কী ঘটেছিলো। তাই আমার একটু সময় প্রয়োজন।”

এর আগে শুক্রবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে তাকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায় ডিসি অফিসের দুই-তিনজন ম্যাজিস্ট্রেট ও বেশ কয়েকজন আনসার সদস্য, এমনটাই অভিযোগ তার পরিবারের সদস্যদের।

পরিবারের সদস্য জানান, শুক্রবার রাতে দুই থেকে তিনজন ম্যাজিস্ট্রেটসহ ১৫-১৬ জন আনসার সদস্য দরজা ভেঙে তার বাড়ির ভেতর ঢুকে আরিফুলকে মারতে থাকে এবং একপর্যায়ে তাকে তুলে নিয়ে যায়।


আরও পড়ুন- কাবিখা’র টাকায় পুকুর সংস্কার করে ডিসি’র নামে নামকরণ!