• সোমবার, এপ্রিল ০৬, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৬:২৭ সন্ধ্যা

করোনাভাইরাস: গুজব ছড়ানোর অভিযোগে যুবক আটক

  • প্রকাশিত ১০:১০ রাত মার্চ ১৭, ২০২০
গাজীপুর-করোনা-গুজব
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে করোনাভাইরাস নিয়ে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে মঙ্গলবার এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ঢাকা ট্রিবিউন

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট দিয়ে আতঙ্ক ছড়ানোর অভিযোগে ওই যুবককে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে করোনাভাইরাস নিয়ে গুজব ও আতঙ্ক ছড়ানোর অভিযোগে এক যুবককে আটক করেছে গাজীপুরের শ্রীপুর থানার পুলিশ। মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) আনোয়ার হোসেন (৩৫) নামে ওই যুবককে আটক করা হয়। তিনি শ্রীপুর পৌরসভার দক্ষিণ ভাংনাহাটি এলাকার বাসিন্দা।

ঢাকা ট্রিবিউনকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লিয়াকত আলী।

তিনি জানান, করোনাভাইরাস নিয়ে গুজব ও আতঙ্ক ছড়ানোর উদ্দেশ্যে ওই যুবক  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি পোস্ট দেয়। সেখানে উল্লেখ করা হয়- "গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার এক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা ট্রেনিং শেষে বাড়ি ফিরেছেন। ট্রেনিংয়ের সময় বিদেশি পর্যবেক্ষকদলের সঙ্গে ঘনিষ্ট হওয়ায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তিনি। ওই শিক্ষিকা শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে গেলে চিকিৎসকরা পালিয়ে যান। করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর তিনিও হাসপাতাল ছেড়ে পালিয়ে যান। আরো কয়েকজনের মধ্যে এমন উপসর্গ দেখা যায়। তাদের ভাগ্যে কি ঘটেছে তা জানা নেই। আপনি আমি আমরা কেউ এখন নিরাপদ নই। তবে  শ্রীপুর হাসপাতালে সেদিন ওই শিক্ষিকা চিকিৎসা না পেয়ে নিজে পালিয়ে গিয়ে সন্তানদের নিয়ে নিজ ঘরের দরজা বন্ধ করে রেখেছেন। আর এলাকাবাসী বাড়ির নির্দিষ্ট দূরত্বে পাহাড়া বসিয়ে আল্লাহ আল্লাহ করছেন। তিনি এখন রীতিমত অবরুদ্ধ। ওই শিক্ষিকা এখন আতংকের নাম। জানিনা তার ও তার পরিবারের সদস্যদের ভাগ্যে কি দুর্ভোগ আছে?"

ওসি বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এমন পোস্ট দিয়ে আতঙ্ক ছড়ানোর অভিযোগে মঙ্গলবার আনোয়ারকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

এ বিষয়ে শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রণয় ভূষণ দাস জানান, শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এমন কোনো রোগী আসেননি এবং হাসপাতালের কোন চিকিৎসকও অনুপস্থিত ছিল না। গুজবের বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং পুলিশকে জানানো হলে পুলিশ ওই যুবককে আটক করেছে।

শ্রীপুরের ইউএনও শেখ শামছুল আরেফীনও গুজব ছড়ানোর অভিযোগে এক যুবককে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) এস এম তরিকুল ইসলাম জানান, গাজীপুরের ‘‘মেঘডুবি মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র’’ হাসপাতালে ইতালিফেরত ৪০ জন মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। আর ৮ জনের শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের তুলনায় বেড়ে যাওয়ায় তাদেরকে অধিকতর পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য রাজধানীর কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।