• বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:০৫ সকাল

পদায়নের ১৬ দিনেও নড়াইলে যোগ দেননি ৬ সরকারি চিকিৎসক

  • প্রকাশিত ০৩:৪১ বিকেল এপ্রিল ৭, ২০২০
চিকিৎসক
প্রতীকী ছবি

এমন পরিস্থিতিতে চিকিৎসক সঙ্কট চলমান পরিস্থিতি মোকাবেলার প্রক্রিয়াকে ব্যাহত করবে বলে মনে করেন কর্মরত চিকিৎসকরা

নড়াইল সদর হাসপাতালে চিকিৎসক সঙ্কট চলে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ হওয়ার পর সেখানে রোগীর চাপ কমে গেলেও কর্মরত চিকিৎসকরা নিয়মিত দায়িত্ব পালন করছেন। চলমান পরিস্থিতিতে করোনাভাইরাস সঙ্কট মোকাবেলায় সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে  চিকিৎসক পদায়নের আবেদন করে।

যার পরিপ্রেক্ষিতে গত ২২ মার্চ জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় জেলার বিভিন্ন উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কর্মরত ১৩ চিকিৎসককে সদর হাসপাতালে যোগদানের নির্দেশ দেয়। তাদের মধ্যে ৭ জন নতুন কর্মস্থলে যোগদান করলেও নির্দেশনা অনুযায়ী এখনও যোগ দেননি ৬ চিকিৎসক।

ফলে এমন সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে সদর হাসপাতালের চিকিৎসাসেবা ব্যহত হচ্ছে।

যোগদান না করা চিকিৎসকরা হলেন- শরিফুল ইসলাম (রেজিস্ট্রেশন নম্বর ১১১৭৩০), মেহেদী হাসান ভূইয়া (রেজিস্ট্রেশন নম্বর ১২৪০২৫), বিপাশা মোশারফ (রেজিস্ট্রেশন নম্বর ১১০৩৮৮), রাহুল বিশ্বাস (রেজিস্ট্রেশন নম্বর ১০৩৩৯৯), মো. সাইফুজ্জামান (রেজিস্ট্রেশন নম্বর ১০১৩৭৮) ও কৃষ্ণপদ বিশ্বাস  (রেজিস্ট্রেশন নম্বর ১১৬৯৩৬)।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চিকিৎসক মেহেদী হাসান জানান, তিনি বর্তমানে কালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত। স্থানীয় সংসদ সদস্যের ছাড়পত্র না পাওয়ায় তিনি সদর হাসপাতালে যোগদান করেননি। 

যোগদান না করা আরেক চিকিৎসক ডা.শরিফুল ইসলাম বলেন, “আমি লোহাগড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কাজ করছি,আমাদের এখানকার উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ছাড়পত্র না দেওয়ায় আমি নড়াইল সদর হাসপাতালে যোগদান করিনি।”

ডা.বিপাশা মোশারফ জানান, সন্তানসম্ভবা হওয়ায় তার পক্ষে লোহাগড়া থেকে নড়াইলে যাওয়া আসা এই মুহূর্তে সম্ভব নয়। বাকি ৩ চিকিৎসকও সদর হাসপাতালে যোগদান না করার বিষয়ে যুক্তিসঙ্গত কোনো কারণ উপস্থাপন করতে পারেননি।

এদিকে, করোনাভাইরাস সংক্রমিতদের চিকিৎসায় নড়াইল সদর হাসপাতালে ২০ বেডের আইসোলেশন ইউনিটসহ জেলায় ৩০টি আইসোলেশন বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। পরিস্থিতির অবনতি হলে নড়াইল কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (টিটিসি) ও নার্সিং ইনস্টিটিউটকে করোনাভাইরাস আক্রান্তদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রূপান্তরের প্রক্রিয়া চলমান। 

এমন পরিস্থিতিতে চিকিৎসক সঙ্কট চলমান পরিস্থিতি মোকাবেলার প্রক্রিয়াকে ব্যাহত করবে বলে মনে করেন কর্মরত চিকিৎসকরা।

নড়াইল সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা.মশিউর রহমান বাবু বলেন,করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় খুলনা বিভাগের পরিচালকের (স্বাস্থ্য) চিকিৎসক চাওয়া হলে তিনি তিনি সিভিল সার্জনকে চিকিৎসক পদায়নের জন্য বলেন। দুঃখের বিষয় হলো এমন পরিস্থিতিতেও ৬ জন চিকিৎসক ১৬ দিন পরেও হাসপাতালে যোগদান করেননি। জেলায় সোমবার পর্যন্ত করোনা সন্দেহে ৪ জনের নমুনা ঢাকায় পাঠানো হলেও  ফলাফল পাওয়া যায়নি।

নড়াইলের  সিভিল সার্জন ডা. এম  এ মোমেন জানান, ২২ মার্চ খুলনা বিভাগের পরিচালকের (স্বাস্থ্য) ভিডিও নির্দেশনা পেয়ে ওই দিনই ১৩ জন চিকিৎসককে নড়াইল সদর হাসপাতালে যোগদানের জন্য পত্র দেওযা হয়। ৬ জন চিকিৎসক যোগদান না করার বিষয়টি ।ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি।

 

53
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail