• শনিবার, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৫:২৯ সন্ধ্যা

করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কলেজ শিক্ষার্থীদের 'ব্রাদারহুড'

  • প্রকাশিত ১২:১২ দুপুর এপ্রিল ১৪, ২০২০
কিশোর সংগঠন ব্রাদারহুড
সংগঠনটির সদস্যরা। ছবি: সৌজন্যে

সমাজের জন্য কিছু করার তীব্র আকাঙ্ক্ষা থেকে ৪ বছর আগে স্কুলপড়ুয়া কয়েকজন  কিশোর তাদের টিফিনের টাকা জমিয়ে শুরু করে সংগঠনটির কাজ

করোনাভাইরাসের প্রকোপে যখন কর্মহীন হয়ে পড়েছে দেশের তৃণমূল মানুষ, সকল বিত্তবানদের দিকে তাকিয়ে কিছুটা সাহায্যের আশায়, সেসময় এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকার ব্রাদারহুড নামে একটি সংগঠনের বেশ কয়েকজন কিশোর। হঠাৎ করে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কর্মহীন মানুষদের বিনামূল্যে সরবরাহ করেছে মাস্ক। নিজ উদ্যোগে জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার করেছে পুরো ক্যাম্পাস, শুধু তাই নয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী এলাকাগুলোতে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে নিজ উদ্যোগে বৃত্ত তৈরি করে দিয়েছে সংগঠনটির কলেজপড়ুয়া শিক্ষার্থীরা।

শুরুটা হয়েছিল ঠিক চার বছর আগে, ২০১৬ সালের ১৪ এপ্রিল। নতুন কোনও কিছু করার তীব্র আকাঙ্ক্ষা থেকে প্রাথমিকভাবে ১৩৫ জন স্কুলপড়ুয়া কিশোরের উদ্যোগে শুরু হয় সংগঠনটির কাজ। এরপর আর থেমে থাকেনি তারা। প্রযুক্তির ওপর নির্ভরশীলতা থেকে মুক্তি, একইসঙ্গে নিজ এলাকা ও পার্শ্ববর্তী এলাকার একইবয়সী কিশোরদের একত্রিত করার প্রয়াসে কখনও ফুটবল টুর্নামেন্ট, কখনও রক ফেস্টের আয়োজন করে তারা। 

২০১৯ সালের ১৬ ডিসেম্বর গঠন করা হয় ব্রাদারহুড এতিম তহবিল, আশেপাশের ছিন্নমূল শিশুদের পড়াশোনা করানোর দায়িত্ব নেয় তারা। আটজন অসহায় শিশুকে সম্পূর্ণ নিজ উদ্যোগে অর্থ সহায়তা দিয়ে আসছে সংগঠনটি।

সমাজের ছিন্নমূল শিশুদের পড়াশোনা শেখানোর দায়িত্ব সিয়েছে সংগঠনটি। ছবি: সৌজন্যে এছাড়াও বিশেষ কোনও উপলক্ষে দরিদ্রদের মাঝে খাদ্যবিতরণ, তাদের উপকারে এগিয়ে যাওয়া এগুলোতো নিত্যনৈমিত্তিক বিষয়। বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকা আমবাগান, ইসলামনগর, পানধোয়া, গকুলনগরে তৈরি করেছে “ভালবাসার দেওয়াল”। যেখানে মানুষ প্রয়োজনের অতিরিক্ত পোশাক রেখে যায়, দরিদ্র মানুষরা সেখান থেকে প্রয়োজনমতো পোশাক সংগ্রহ করে নেন।

ভালবাসার দেওয়াল,  যেখানে প্রয়োজনের বাড়তি কাপড় রেখে যাওয়া হয় দরিদ্রদের জন্য। ছবি: সৌজন্যে

এছাড়া আসন্ন রমজানে দরিদ্রদের ইফতার করানোর পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী ফারভিদ মিরাজ। 

এ প্রসঙ্গে মিরাজের বাবা জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল ও কলেজের সমাজকল্যাণের সহকারী অধ্যাপক মো. শহীদুল ইসলাম, “অষ্টম শ্রেণিতে পড়ার সময় আমার ছেলে টিফিনের টাকা জমিয়ে দরিদ্র বেশকয়েকজনকে কাপড় কিনে দিয়েছিল, সেই থেকে শুরু, এরপর বিভিন্ন জাতীয় দিবসগুলোতে ওদের সংগঠনের পক্ষ থেকে দরিদ্রদের খাওয়ানোসহ বিভিন্ন আয়োজন করে থাকে। বাবা হিসেবে চেষ্টা করি প্রতিনিয়ত এসব কাজে উৎসাহ দেওয়ার।”

71
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail