• শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৫৯ রাত

একুশে পদক জয়ী সাবেক রাবি শিক্ষক মজিবর রহমান মারা গেছেন

  • প্রকাশিত ১০:১৬ সকাল মে ১৯, ২০২০
অধ্যাপক ড. মজিবর রহমান
অধ্যাপক ড. মজিবর রহমান ঢাকা ট্রিবিউন

মুক্তিযুদ্ধের সময় কনসেনট্রেশন ক্যাম্পে প্রায় চারমাস ধরে তার ওপর অমানবিক শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়েছিল পাকিস্তানি বাহিনী। সেই থেকে তিনি আর স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেননি

একুশে পদক বিজয়ী রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণিত বিভাগের সাবেক শিক্ষক অধ্যাপক ড. মজিবর রহমান (দেবদাস) মারা গেছেন। বার্ধক্যজনিত কারণে সোমবার (১৮ মে) জয়পুরহাটের মহুরুল গ্রামের নিজ বাড়িতে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় রাষ্ট্রীয় সম্মাননা দিয়ে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হয়।

মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি বাহিনী ও তাদের দোসরদের গণহত্যা, নির্মমতা, নিষ্ঠুরতা দেখে অধ্যাপক মজিবর রহমান অতিষ্ঠ হয়ে ওঠেন। ১৯৭১ সালের ১০ মে তৎকালীন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পবিত্রতা নষ্ট এবং বিশ্ববিদ্যালয়কে আর্মি ক্যাম্পে পরিণত করার প্রতিবাদ জানিয়ে প্রতিবাদলিপি দেন মজিবর রহমান। মুসলমান হয়ে আরেক মুসলমানের ওপর পাকিস্তানি বাহিনীর নির্মমতা দেখে নিজের নাম পরিত্যাগ করে নতুন নাম “দেবদাস” গ্রহণ করেন। নতুন নামেই ওই প্রতিবাদলিপিতে দিয়েছিলেন তিনি।

প্রশাসনিক তৎপরতায় অধ্যাপক মজিবর রহমান দেবদাসের চিঠি পৌঁছে যায় তৎকালীন পাকিস্তানের সামরিক দপ্তরে। ১৯৭১ সালের ১২ মে এ প্রতিবাদী অধ্যাপককে ক্যাম্পাস থেকে ধরে নিয়ে যায় পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। রাজশাহী, পাবনা ও নাটোর কনসেনট্রেশন ক্যাম্পে প্রায় চারমাস ধরে তার ওপর চলে অমানবিক শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। অকথ্য নির্যাতনে অধ্যাপক রহমান যখন বদ্ধ উন্মাদপ্রায় তখন ৫ সেপ্টেম্বর, ১৯৭১ তাকে ছেড়ে দেওয়া হয় নাটোর ক্যাম্প থেকে।

মুক্তিযুদ্ধে শহীদ রাবির শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পরিবারকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোয়ার্টারে অবস্থানসহ কিছু সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় প্রশাসন। জাতীয় অধ্যাপক ও ইতিহাসবিদ সালাহউদ্দিন আহমেদের (তৎকালীন রাবি শিক্ষক) একান্ত প্রচেষ্টায় শহীদ পরিবারকে দেওয়া সুযোগ-সুবিধা অধ্যাপক মজিবর রহমান দেবদাসের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে, এ মর্মে সিন্ডিকেটে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সে থেকেই তাকে আখ্যায়িত করা হয় ‍“জীবন্ত শহীদ” হিসেবে।

’৭১-এর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের কারণে তিনি আর স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেননি। বেঁচে থাকলেও তিনি ছিলেন ভুগছিলেন স্মৃতি বিভ্রাটে। ছিলেন “জীবন্মৃত” অবস্থায়। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত অকৃতদার এই বুদ্ধিজীবী এভাবেই বেঁচে ছিলেন।

তৎকালীন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন মানসিক রোগের চিকিৎসার জন্য তাকে পাবনার হেমায়েতপুর মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করে। তবে চিকিৎসা নিতে অনীহা প্রকাশ করেন প্রতিবাদী এই শিক্ষক। হেমায়েতপুর থেকে ফিরে তিনি পুরোপুরি লোকচক্ষুর অন্তরালে চলে যান। 

দীর্ঘদিন ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেউই তার খোঁজ জানতেন না। ১৯৯৭ সালে দৈনিক আজকের কাগজের রাবি প্রতিনিধি হাসিবুল আলম প্রধান (বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক) তার খোজ পেয়ে একটি প্রতিবেদন লেখেন। যা ১৯৯৭ সালের ২৪ জুলাই ওই পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। 

প্রতিবেদনটি তৎকালীন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নজরে এলে ১৯৯৮ সালের ১২ আগস্ট রাবি প্রশাসন মহান মুক্তিযুদ্ধে ত্যাগ ও অবদানের জন্য তাকে সংবর্ধনা দেয়। আর মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের জন্য স্বাধীনতার ৪৩ বছর পর ২০১৫ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ সরকার তাকে একুশে পদকে ভূষিত করে।

জীবনে শেষ সময় জয়পুরহাটের সদর উপজেলার মহুরুল গ্রামে নিজ বাড়ির চার দেয়ালে আবদ্ধ ছিলেন ড. মজিবর। তার দেখভাল করতেন ভাইয়ের স্ত্রী রোকেয়া বেগম ও নাতি-নাতনীরা।

১৯৩০ সালের ১ জানুয়ারি জয়পুরহাট জেলায় জন্মগ্রহণ করেন ড. মজিবর রহমান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৫২ সালে গণিতে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান অধিকার করে এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন। তারপর করাচির সেন্ট্রাল সরকারি কলেজে যোগদানের মাধ্যমে তার অধ্যাপনা জীবনের শুরু করেন। ১৯৬৪ সালে অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন ইউনিভার্সিটি থেকে ফলিত গণিতে এমএসসি ডিগ্রি অর্জন করে করাচির নাজিমাবাদ কলেজে যোগ দেন। পরে তিনি ১৯৬৭ সালের ১৬ অক্টোবর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে গণিত বিভাগে সিনিয়র লেকচারার হিসেবে যোগদান করেন।

51
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail