• শনিবার, অক্টোবর ২৪, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৫৮ রাত

২২৫ টাকার টিকিট ১৫'শ টাকা!

  • প্রকাশিত ০৯:৩৩ রাত আগস্ট ৭, ২০২০
জামালপুর
ঢাকা ট্রিবিউন

ইসলামপুর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার বলেন, ‘ট্রেনের টিকিটতো অনলাইনে বিক্রি হয় তাই আমাদের তো এখন আর কিছু করার নেই’

জামালপুরের ইসলামপুর রেলস্টেনে প্রকাশ্যে ট্রেনের টিকিটে কালোবাজারির অভিযোগ উঠেছে। জানা গেছে, আন্তঃনগর তিস্তা এক্সপ্রেস ও ব্রহ্মপুত্র এক্সপ্রেস ট্রেনের একটি টিকেটের মূল্য ২২৫ টাকা হলেও বর্তমানে সেই সেই টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে ১২শ’ থেকে ১৫শ’ টাকায়। উপায় না থাকায় চড়া দামেই টিকিট কিনতে বাধ্য হচ্ছেন যাত্রীরা।

ইসলামপুর বাজার স্টেশন সূত্রে জানা গেছে, করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সীমিত পরিসরে ট্রেন চলাচলে নেওয়া সরকারি সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে, ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ ও দেওয়ানগঞ্জ-ঢাকা রেলপথের জন্য দু’টি আন্তঃনগর ট্রেন চালু করা হয়।

অভিযোগ রয়েছে, রেলের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজসের কারণে রেলের টিকিট অনলাইনে ওপেন হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই খবর পেয়ে যাচ্ছে কালোবাজারিরা। এতে টিকিট কালোবাজারিরা আগে থেকেই প্রতিদিন মোবাইল অ্যাপস এর মাধ্যমে অনলাইনে টিকিট কেটে নিচ্ছে। পরবর্তীতে বিভিন্ন কারসাজিতে অতিরিক্ত দামে এসব টিকিট চড়া দামে বিক্রি করছে। প্রভাবশালী হওয়ায় কালোবাজারিদের নাম বলতে সাহস পাচ্ছে না কেউ।

প্রসঙ্গত, ইসলামপুর বাজার স্টেশনে আন্তঃনগর তিস্তা এক্সপ্রেস ট্রেনের ৪৯টি আসনের মধ্যে শোভন চেয়ারের প্রতিটি টিকিটের মূল্য ২২৫ টাকা, এসি চেয়ার টিকিটের মূল্য ৪২৬ টাকা ও ৪টি কেবিন রয়েছে যার প্রতিটির মূল্য ৫১২ টাকা। এছড়া, ব্রহ্মপুত্র এক্সপ্রেস ট্রেনের আসন রয়েছে শোভনের ৬০টির মূল্য ১৮৫ টাকা করে ও শোভন চেয়ার রয়েছে ৭টি, যার প্রতিটির মূল্য ২২৫ টাকা।

শুক্রবার দুপুরে ইসলামপুর বাজার রেলওয়ে স্টেশনে গিয়ে জানা যায়, গন্তব্যের উদ্দেশে প্ল্যাটফর্মে ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছেন হাজারও যাত্রী। অধিকাংশ যাত্রীদের কাছে ট্রেনের টিকিট নেই। যাদের কাছে রয়েছে তারাও কিনেছেন চড়া দামে।

ইসলামপুর পৌর শহরের মোশারফগঞ্জ এলাকার বাবুল মিয়া নামে এক গার্মেন্টসকর্মী ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “টিকিট যেন সোনার হরিণ হয়ে গেছে। আমি একটা টিকেট কিনেছি ১২শ’ টাকায়। এই টিকিটের মূল্যে দেওয়া আছে ২২৫ টাকা।”

শাহজাহান মিয়া ও গার্মেন্টসকর্মী আনেছা বলেন, “সব টিকিট কালোবাজারিরা অনলাইনে কিনে রাখে। আমরা কেনার সুযোগই পাই না। আজ থেকে ঈদের ছুটি শেষ তাই ঢাকাতে যেতেই হবে। বাধ্য হয়ে ২২৫ টাকার টিকিট ১২শ’ টাকায় কিনলাম।”

এবিষয়ে ইসলামপুর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার মো. মিজানুর রহমান ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “ট্রেনের টিকিট তো অনলাইনে বিক্রি হয় তাই আমাদের তো এখন আর কিছু করার নেই। যদি কেউ প্লাটফর্মে এসে টিকিট বিক্রি করে আমরা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তুলে দেবো”।

ইসলামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান এর প্রতিকার সম্পর্কে বলেন, “কোনও কালোবাজারি ট্রেনের টিকিট বিক্রি করলে আমরা মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।”

56
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail