• শুক্রবার, অক্টোবর ৩০, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:১৯ রাত

হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত এসআই আকবর ‘লাপাত্তা’

  • প্রকাশিত ০৬:৪৮ সন্ধ্যা অক্টোবর ১৩, ২০২০
সিলেট-এসআই আকবর
এসআই আকবর ঢাকা ট্রিবিউন

এ ঘটনায় ফাঁড়ির সদস্যদের কর্তব্যে অবহেলা ও অদক্ষতার প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে স্বীকার করেছে পুলিশ

সিলেটে পুলিশ হেফাজতে যুবক নিহতের ঘটনায় বরখাস্ত হওয়া বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূঁইয়ার কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে পুলিশের একটি সূত্র। এমনকি তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনও বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। এদিকে, চাঞ্চল্যকর রায়হান হত্যা মামলা মঙ্গলবার পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। 

মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) সকাল থেকেই এসআই আকবরের কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্রটি। এদিকে, তৃতীয়দিনের মতো আজ পুলিশ হেফাজতে রায়হান হত্যার প্রতিবাদে সিলেটে বিক্ষোভ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উল্লেখ্য, পুলিশ হেফাজতে এক ব্যক্তির মৃত্যুর ঘটনায় আকবর ছাড়াও সোমবার বন্দরবাজার ফাঁড়ির কনস্টেবল হারুনুর রশিদ, তৌহিদ মিয়া ও টিটু চন্দ্র দাসকে বরখাস্ত করা হয়। প্রত্যাহার করা হয় সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আশেক এলাহী, এএসআই কুতুব আলী ও কনস্টেবল সজিব হোসেনকে।

ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের বক্তব্য

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) জ্যোতির্ময় সরকার জানান, এসআই আকবর হোসেনকে সোমবার বরখাস্ত করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। তার লাপাত্তা হয়ে যাওয়ার বিষয়টি জানা নেই। 

এ বিষয়ে তিনি আর কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।


আরও পড়ুন- সিলেটে পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে যুবককে হত্যার ঘটনায় মামলা


জ্যোতির্ময় জানান, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের নির্দেশে রায়হান হত্যা মামলাটি পিবিআই’র কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এর আগে কোতয়ালী থানার এসআই আব্দুল বাতেন মামলাটি তদন্তের দায়িত্বে ছিলেন।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের (এসএমপি) উপ-কমিশনার (সদর উত্তর) আজাহার আলী শেখ জানান, পুলিশ হেফাজতে মৃত্যুর ঘটনাটি এসএমপি’র অতিরিক্ত উপ কমিশনার শাহরিয়ার আল মামুনের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের একটি দল তদন্ত করে। তারা ইতোমধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন। তারই আলোকে এসআই আকবরসহ চার পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত এবং তিনজনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। 

তিনি জানান, এ ঘটনায় ফাঁড়ির পুলিশ সদস্যদের কর্তব্যে অবহেলা ও অদক্ষতার প্রমাণ পাওয়া গেছে। 

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্বজনদের ভাষ্য

ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছেও। বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির লাগোয়া কুদরত উল্যাহ মার্কেট বোর্ডিংয়ের বাসিন্দা হাছান খান জানান, ঘটনার দিন রাতে তিনি তার রুম থেকে কান্নার শব্দ শুনেছেন। যুবকটি তখন বাঁচার আকুতি করছিল। 

প্রসঙ্গত, নিহত রায়হানের আখালিয়া নেহারীপাড়ার বাসিন্দা ছিলেন। সিলেট নগরীর স্টেডিয়াম মার্কেট এলাকায় একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে  চাকরি করতেন তিনি। ঘটনার দিনও (শনিবার) যথারীতি কাজে যান। রাতে বাড়িতে না ফেরায় স্বজনরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন।

নিহতের চাচা মো. হাবিবুল্লাহ বলেন, “রাত চারটার দিকে রায়হান একজন পুলিশ সদস্যের মুঠোফোন দিয়ে তার মাকে কল করে বলেন,  ‘আমারে বাঁচাও, ১০ হাজার টাকা লইয়া তাড়াতাড়ি ফাঁড়িতে আও।’ এরপর পরিবারের সদস্যরা নিশ্চিত হন রায়হানকে বন্দরবাজার ফাঁড়িতে আটকে রাখা হয়েছে। খবর পেয়ে নগরীর কুদরত উল্লাহ জামে মসজিদে ফজরের নামাজ পড়ে পাশে ফাঁড়িতে রায়হানের সন্ধানে গেলে ডিউটিরত কনস্টেবল বলেন- ‘সবাই ঘুমে। সকালে আসেন।’”

হাবিবুল্লাহর দাবি, সকালে পৌনে ১০টার দিকে ৫ হাজার টাকা সংগ্রহ করে ফাঁড়িতে গেলে পুলিশ বলে রায়হান অসুস্থ। এরপর তারা ওসমানী মেডিকেলে যান। কোথাও খুঁজে না পেয়ে মর্গে গিয়ে রায়হানের লাশ পাওয়া যায়। 

তিনি আরও অভিযোগ করেন, রায়হানের পায়ের তলা ও হাঁটুর নিচসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার হাতের নখ উপড়ে ফেলা হয়েছে। ফাঁড়ির ভেতর পুলিশের নির্যাতনেই তার মৃত্যু হয়েছে।

রায়হানের মৃত্যুর ঘটনায় রবিবার (১২ অক্টোবর) দিবাগত রাত আড়াইটায় সিলেট মহানগর পুলিশের (এসএমপি) কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়ের করন তার স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি।

এর আগে ছিনতাইয়ের সময় গণপিটুনিতে রায়হানের মৃত্যু হয়েছে বলে পুলিশ দাবি করলেও নির্যাতনের অভিযোগ ওঠার পর ঘটনাটি তদন্তের আশ্বাস দেন বাহিনীটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

62
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail