• বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২১, ২০২১
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:১৮ রাত

লালমনিরহাটে যুবককে হত্যার পর লাশ পুড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ

  • প্রকাশিত ১১:৩০ সকাল অক্টোবর ৩০, ২০২০
লালমনিরহাট
জুয়েলকে হত্যার পর কাঠখড়ি ও পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে লাশ পুড়িয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ উঠেছে। ঢাকা ট্রিবিউন

পিটিয়ে হত্যার পর নিহতে লাশ লালমনিরহাট-বুড়িমারী জাতীয় মহাসড়কের ওপর নিয়ে কাঠখড়ি ও পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে পুড়িয়ে দেয় বিক্ষুব্ধ জনতা

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলায় এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার পর পেট্রোল ঢেলে লাশ পুড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) মাগরিবের নামাজের আগে উপজেলার বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদ চত্ত্বরে ওই যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। পরে লাশ নিয়ে বুড়িমারী প্রথম বাঁশকল এলাকায় জয় ট্রেডার্সের সামনে লালমনিরহাট-বুড়িমারী জাতীয় মহাসড়কের ওপর কাঠখড়ি ও পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে পুড়িয়ে দেয় বিক্ষুব্ধ জনতা।

বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) উপজেলার বুড়িমারী ইউনিয়নের বুড়িমারী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে এক ঘটনার জের ধরে এই সহিংসতার সূত্রপাত হয় বলে জানা গেছে। তবে নিহতের নাম-পরিচয় এখনও জানা যায়নি। 

বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের ১নম্বর ওয়ার্ড সদস্য হাফিজুল ইসলাম মোবাইল ফোনে ঘটনার বর্ণনা করে বলেন, “আসরের নামাজ শেষে বুড়িমারী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে দুইজন বহিরাগত অজ্ঞাত পরিচয়ধারী ব্যক্তি যায়। মসজিদের খাদেম জুবেদ আলীকে সাথে নিয়ে একজন মসজিদের ভেতরে প্রবেশ করে কোরআন শরীফ ও হাদিসের বই রাখার তাকে অস্ত্র আছে বলে তল্লাশি শুরু করে। এক পর্যায়ে মসজিদের সামনে থাকা ৫-৬জন মুসল্লি প্রবেশ করে ওই ব্যক্তিকে এবং বারান্দায় থাকা অপর ব্যক্তিকে সিঁড়িতে বসিয়ে মারধর করছিল। খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই দুই ব্যক্তিকে নিয়ে এসে পাশে বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের একটি কক্ষের ভেতরে ঢুকিয়ে তালা লাগিয়ে রাখি। খবর পেয়ে মুহুর্তে শত শত লোকজন জড়ো হতে থাকে। আমি ও স্থানীয় রফিকুল ইসলাম প্রধান নামে একজন ব্যক্তি পাটগ্রাম থানার ওসি সুমন কুমার মোহন্ত, ইউএনও কামরুন নাহার, উপজেলা চেয়ারম্যান রুহুল আমীন বাবুল ও বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এসএম নেওয়াজ নিশাতকে ফোনে কল দিলে তারাও আসেন।”

তিনি বলেন, “এরইমধ্যে হাজার হাজার উত্তেজিত জনতা কারও কথাই না শুনে পরিষদের দরজা-জানালা ভেঙে একজন ব্যক্তিকে বাইরে বের করে ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরেই সবার সামনে পিটিয়ে হত্যা করে। পরে লাশ টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে গিয়ে লালমনিরহাট-বুড়িমারী জাতীয় মহাসড়কের বুড়িমারী প্রথম বাঁশকল এলাকায় কাঠখড়ি ও পেট্রোল দিয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পুড়িয়ে ছাই করে দেয়। সেখানে ৫-৬ হাজার উত্তেজিত মানুষ ছিল, কারও কোনো নিয়ন্ত্রণ ছিল না।”

তিনি মোবাইলে বলেন, “আমরা লোক দুইজনের সাথে কথা বলারও সময় পাইনি। তাই পরিচয় নেওয়া সম্ভব হয়নি। এমন কি তাদের ধর্ম সম্পর্কেও জানা সম্ভব হয়নি।”

বুড়িমারী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন আফিজ উদ্দিন বলেন, “আমি আসরের নামাজ শেষ করে বাইরে বের হয়ে যাওয়ার সময় দেখতে পাই খাদেম জুবেদ আলীকে দুইজন অপরিচিত ব্যক্তি সালাম দিয়ে হ্যান্ডশেক করে কথা বলছিল। এরপর তারা মসজিদের ভেতরে ঢুকে যায়। আমিও চলে যাই। পরে এসে ঘটনার কথা শুনেছি। কিন্তু বিস্তারিত কিছু জানি না।”

জানতে চাইলে ওই মসজিদের খাদেম জুবেদ আলী বলেন, “আমাকে র‌্যাব ও আর্মির পরিচয় দিয়ে বলা হয় যে, কোরআন শরীফ ও হাদীস রাখার তাকে অস্ত্র আছে। এ কথা বলেই অস্ত্র আছে কিনা, একজন তা খুঁজতে শুরু করে। এক পর্যায়ে সবকিছু তছনছ করে। এ সময় মসজিদের বাইরে অবস্থান করা হোসেন আলী (৩৫) নামে এক মুসল্লিসহ ৫-৬জন মুসল্লি মসজিদের ভেতরে ঢুকে তাকে আটক করে বাইরে নিয়ে যায়। মসজিদের বারান্দায় থাকা অপর জনকেসহ অপরিচিত দুই ব্যক্তিকে মসজিদের বারান্দার সিঁড়িতে মারধর করছিল তারা। পরে হাফিজুল ইসলাম মেম্বার এসে তাদেরকে নিয়ে যায়। এরপর কী কী হয়েছে আমি জানি না।”

ঘটনা জানতে পাটগ্রাম থানার ওসি সুমন কুমার মোহন্তকে ফোন করা হলে তিনি ব্যস্ত আছেন বলে লাইন কেটে দেন।

এসপি আবিদা সুলতানা ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ ও র‌্যাব পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থলে না যাওয়ার আগে কোনো মন্তব্য করতে পারছি না। তবে আপনি যা শুনেছেন, আমরাও তা শুনেছি।”

লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক আবু জাফর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, “সেখানকার সার্বিক পরিস্থিতি এখনই বলার মতো নয়। শুনেছি ইউনিয়ন পরিষদেসহ বিভিন্ন জায়গায় অগ্নিসংযোগ করা হচ্ছে। একজনকে মেরে আগুনে পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। এসব সার্বিক বিষয়ে সরজমিনে জানার জন্য, পরিস্থিতি বোঝার জন্য ঘটনাস্থলের পথে আমি রওনা হয়েছি। অতিরিক্ত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সেখানে পাঠানো হয়েছে।”

63
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail