• মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ০১, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৯:০৫ রাত

‘রক্ত পড়তাছে, তাও স্বামী আমারে ছাড়ে নাই’

  • প্রকাশিত ১১:০২ রাত অক্টোবর ৩০, ২০২০
বাল্যবিয়ে
প্রতীকী ছবি। সংগৃহীত

চিকিৎসকদের ভাষ্য, মৃত্যুর পূর্বে ওই শিক্ষার্থীর গোপনাঙ্গে রক্তক্ষরণ হচ্ছিল

টাঙ্গাইলের বাসাইলে বিয়ের ৩৪ দিনের মাথায় মারা যাওয়া অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী নুর নাহারের (১৪) ময়নাতদন্তের ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করছে পুলিশ। পুলিশ বলছে, ময়নাতদন্তের রির্পোট পাওয়ার পর তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে নিহতের পরিবারের লোকজন এ ঘটনায় সুষ্ঠু বিচারের দাবি করেছেন।  

নুর নাহারের মৃত্যুর ঘটনায় নানা লাল খান বলেন, আমার মেয়ের জামাইয়ের অভাবের কারণে নুর নাহারকে ছোটবেলাতেই আমার বাড়িতে নিয়ে আসি। দিনমজুরি করেই তাকে লেখাপড়া করাচ্ছিলাম। ছেলে প্রবাসী ও ধনী হওয়ায় আমরা নুর নাহারকে বিয়ে দেই। বিয়ের কয়েকদিন পর থেকে তার রক্তক্ষরণ শুরু হয়। এ জন্য নুর নাহারের শাশুড়ি তাকে গ্রাম্য কবিরাজের ওষুধ খাওয়াচ্ছিল। পরে রক্তক্ষরণ বেশি হলে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ডাক্তাররা বলেছেন, অপ্রাপ্ত বয়সে বিয়ের কারণে নুর নাহারের গোপনাঙ্গ দিয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। শেষ পর্যন্ত আমরা তাকে আর বাঁচাতে পারলাম না। মৃত্যুর পর নুর নাহারের স্বামী রাজিব তার লাশ পর্যন্ত দেখতে আসেনি। মূলত স্বামীর কারণেই আমার নাতনির মৃত্যু হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, “মৃত্যুর আগে নুর নাহার আমাকে বলেছিল ‘রক্ত পড়তাছে, যন্ত্রণায় কুকাইতাছি, দম বন্ধ হয়ে আসছে, বলছি আমারে বাঁচতে দেন, তাও ও (স্বামী) আমারে ছাড়ে নাই।  স্বামী রাজিব বলে প্রথম দিকে এরকম সমস্যা হয়ই, কয়েকদিন পর ঠিক সয়ে যাবে’।”  

নুর নাহারের বাবা বলেন, রাজিবের বাবাকে কয়েকদফা ফোন করেছি। তিনি বলছেন, আপনারা চিকিৎসা করান, আমি গিয়ে কি করবো। আর ক্লিনিকে নুর নাহারকে তার পরিবারের কাছে বুঝিয়ে দিয়ে স্বামী রাজিব কৌশলে সেখান থেকে কেটে পড়ে।


আরও পড়ুন - অপ্রাপ্তবয়স্ক স্ত্রী, তবুও থামেনি স্বামীর পাশবিকতা


নুর নাহারের স্বামী রাজিব বলেন, আমার বিয়ের পর তার সাথে পাঁচ ছয়দিন মেলামেশা হয়েছে। সে (ছাত্রী) বলছে তার কষ্ট হয়, ব্যাথার কথা জানান এবং রক্তক্ষরণ দেখা দেয়। বিষয়টি দু’পক্ষের গার্জেনদের জানানো হয়। গার্জিয়ানরা চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। 

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আতাউর রহমান আজাদ ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “ঘটনাটি খুবই অমানবিক। বাল্যবিয়ের ফলেই এই ঘটনাটি ঘটেছে। তার স্বামী স্ত্রীর প্রতি আরও যত্মবান হওয়া উচিৎ ছিল। এছাড়া তার শারীরিকভাবে তার স্ত্রীর চিকিৎসা করানোর প্রয়োজন ছিলো। যদি সেভাবে চিকিৎসা করানো হতো তা হলে ওই ছাত্রীর মৃত্যু হতো না।”  

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শামছুন নাহার স্বপ্না ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “বাল্যবিয়ের শিকার হয়ে অষ্টম শ্রেণির একজন ছাত্রীর মৃত্যুর হওয়ার কথা শুনেছি। মেয়েটির মৃত্যু বাল্যবিয়ে নাকি অন্য কোনো কারণে হয়েছে তা তদন্ত সাপেক্ষে বলা যাবে।  তবে বাল্য বিয়ের কারণে যদি তার মৃত্যু হয়ে থাকে বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক। শুধু আইন দিয়ে নয়, সামাজিক সচেতনতাই পারে বাল্য বিয়ে নির্মূল করতে। সমাজের সকলকে একযোগে এর মোকাবেলা করতে হবে।’  

এ ব্যাপারে বাসাইল থানার ওসি হারুনুর রশিদ ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “আমরা এখন ময়নাতদন্তের রির্পোটের জন্য অপেক্ষা করছি। ময়নাতদন্তের রির্পোট পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”  


আরও পড়ুন - পুলিশের এএসআইয়ের নেতৃত্বে স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণ


টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলায় বিয়ের ৩৪ দিন পর নুরনাহার (১৪) নামের এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। চিকিৎসকেরা বলছেন, মৃত্যুর পূর্বে ওই শিক্ষার্থীর গোপনাঙ্গে রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। 

গত রবিবার (২৫ অক্টোবর) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। 

সম্প্রতি উপজেলার ফুলকি পশ্চিমপাড়া গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে ৩৪ বছর বয়সী সংযুক্ত আরব আমিরাত ফেরত রাজির খানের সঙ্গে বিয়ে হয় মেয়েটির। তবে ওই শিক্ষার্থী প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়ায় তাদের বিয়ের রেজিস্ট্রি হয়নি। অপ্রাপ্ত বয়সে বিয়ে হওয়ায় বিয়ের পর থেকেই তার যৌনাঙ্গে রক্তক্ষরণ শুরু হয়। 

একপর্যায়ে নুরনাহারের শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে কবিরাজ দিয়ে চিকিৎসা করান। রক্তক্ষরণ হলেও তার স্বামীর পাশবিকতা থামেনি। পরে গত বৃহস্পতিবার তাকে টাঙ্গাইলের একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে নিয়ে চিকিৎসা করানো হয়। 

পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে ও পরে অবস্থার আরও অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৫ অক্টোবর ভোরে নুরনাহারের মৃত্যু হয়।


আরও পড়ুন - গণধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা ১৬ বছরের কিশোরী, গ্রেপ্তার ৫

66
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail