• মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৩, ২০২১
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:০৫ রাত

রায়হান হত্যা: তদন্তের মেয়াদ বাড়লো ১ মাস

  • প্রকাশিত ০৩:৪২ বিকেল ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২১
রায়হান-সিলেট
পুলিশ হেফাজতে নিহত রায়হান ঢাকা ট্রিবিউন

'মামলার তদন্ত শেষ পর্যায়ে, তবে কবে নাগাদ অভিযোগপত্র দেয়া হবে তা এখনো নিদিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না। ত্রুটিমুক্ত অভিযোগপত্র দিতে পিবিআই কাজ করছে'

সিলেটে পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে নিহত রায়হান আহমদ (৩৩) হত্যা মামলার তদন্তের সময় আরও এক মাস (৩০ কার্যদিবস) বাড়ানো হয়েছে। 

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)-এর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ খালেদ উজ্জামান এ তথ্য জানিয়ে বলেছেন, বর্ধিত সময়ের মধ্যেই রায়হান হত্যা মামলার অভিযোগপত্র আদালতে জমা দেবার প্রস্তুতি নিয়েছেন। 

তিনি বলেন, "মামলার তদন্ত শেষ পর্যায়ে। তবে, কবে নাগাদ দেয়া হবে তা এখনো নিদিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না। ত্রুটিমুক্ত অভিযোগপত্র দিতে পিবিআই কাজ করছে।" 

পিবিআই সূত্র জানায়, রায়হান হত্যা মামলার তদন্তে আরো সময় চেয়ে গত ১০ ফেব্রুয়ারি সিলেটের অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্দুল মুমিনের আদালতে আবেদন করা হয়। ১৪ ফেব্রুয়ারি শুনানি শেষে আদালত ৩০ কার্যদিবস বাড়ানোর আদেশ দেন। এই সময়ের মধ্যেই রায়হান হত্যা মামলার অভিযোগপত্র দিতে হবে বলে আদালত নির্দেশনা দিয়েছেন। 


আরও পড়ুন - ১১১টি আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে পুলিশের নির্যাতনে নিহত রায়হানের শরীরে 


সিলেট মহানগর দায়রা জজ আদালতের পিপি (পাবলিক প্রসিকিউটর) অ্যাভোকেট নওশাদ আহমদ চৌধুরী জানান, "রায়হান হত্যা মামলা একটি চাঞ্চল্যকর মামলা। এ মামলার আসামিরা জামিন নিতে তৎপর। নৃশংস এ হত্যাকাণ্ডের আসামিরা যাতে কোনো ফাঁক-ফোকর দিয়ে জামিন নিতে না পারে-সে ব্যাপারে রাষ্ট্রপক্ষ তৎপর রয়েছে।" 

সূত্র জানায়, রায়হান হত্যার আলামত হার্ডডিস্ক নষ্ট করার মূল হোতা এসআই হাসান আলীকে গত ২৯ জানুয়ারি গ্রেফতার করা হলেও সাংবাদিক আব্দুল্লাহ আল নোমানের কোনো খোঁজ এখনো মেলেনি। এমনকি তার অবস্থান এখনো নিশ্চিত করা যায়নি। এই দু’জন মিলেই আলামত নষ্ট করে বলে পুলিশের অভ্যন্তরীণ তদন্তে উঠে আসে।

জানা গেছে, রায়হান হত্যার পর ২১ অক্টোবর এসআই হাসানকে সাময়িক বরখাস্ত করে মহানগর পুলিশ। এরপর থেকে তাকে নগর পুলিশ লাইনসে বিশেষ নজরদারিতে রাখা হয়েছিল। 


আরও পড়ুন - ভাইকে আকবর: বিপদে আছি, সবাইকে বলিস দোয়া করতে


রায়হান হত্যার পর হাসান, আকবরসহ এ পর্যন্ত ছয় পুলিশ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্য চারজন হলেন- এএসআই আশেক এলাহী, কনস্টেবল হারুনুর রশীদ, কনস্টেবল তৌওহিদ মিয়া ও কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাস। 

হত্যাকাণ্ডের দু’দিন পর ১৩ অক্টোবর মামলাটি কোতোয়ালী থানা থেকে পিবিআইয়ের কাছে স্থানান্তর করে পুলিশ সদর দপ্তর। এর আগের দিন নিহত রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি বাদী হয়ে কোতোয়ালী থানায় মামলা দায়ের করেন।

রায়হান হত্যার পর সাময়িক বরখাস্তের পরই কৌশলে সাংবাদিক নোমানের সহযোগিতায় নগর ছেড়ে কোম্পানীগঞ্জে পালিয়ে গিয়ে আত্মগোপন করে আকবর। এরপরই ভারতে পালিয়ে যায়। ৯ নভেম্বর সকালে কানাইঘাটের ডনা সীমান্ত থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। বিভিন্ন মাধ্যমে কৌশলে পুলিশ তাকে ফিরিয়ে নিয়ে আসে।


আরও পড়ুন - যেতে চেয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে, পুলিশ পাঠিয়ে দিলো পরপারে


সিসি ক্যামেরার ফুটেজ অনুযায়ী, ১০ অক্টোবর রাত ৩টা ৯ মিনিট ৩৩ সেকেন্ডে স্বাভাবিক অবস্থায় রায়হানকে সিলেটের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে ধরে আনা হয়। পরে সকাল ৬টা ২৪ মিনিট ২৪ সেকেন্ডে ফাঁড়ি থেকে বের করা হয়। ৬টা ৪০ মিনিটে ভর্তি করা হয় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে তিনি মারা যান। 

ওই হাসপাতালেই বেলা ১টা থেকে দেড়টার মধ্যে লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। সেই ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট মামলার তদন্তের দায়িত্বে থাকা পিবিআইয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। রিপোর্টে বলা হয়, রায়হানের মৃত্যুর ২ থেকে ৪ ঘণ্টা আগে তার ওপর নির্মম নির্যাতন চালানো হয়। সে হিসেবে ফাঁড়িতে আনার পর থেকেই তার ওপর নির্যাতন চলে। 

রিপোর্টে বলা হয়, রায়হানের ডান হাতের কনিষ্ঠ আঙুল আর বাম হাতের অনামিকার নখ উপড়ানো ছিল। অসংখ্য আঘাতের কারণে হাইপোভলিউমিক শক ও নিউরোজেনিক শকে মস্তিষ্ক, হৃৎপিণ্ড, ফুসফুস, কিডনিসহ গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলো কর্মক্ষমতা হারানোর কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। তবে মৃত্যুর পূর্ণাঙ্গ কারণ ভিসেরা প্রতিবেদন পাওয়ার পর বলা যাবে বলে প্রাথমিক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। 

ঐ দিনই ময়না তদন্ত শেষে তার লাশ দাফন করা হয়। পরে ১৫ অক্টোবর কবর থেকে রায়হানের লাশ উত্তোলন করে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে পুনরায় ময়নাতদন্ত করা হয়। নির্যাতনে রায়হানের হাতের দু’টি আঙ্গুলের নখ তুলে ফেলে এসআই আকবর। রাতভর নির্যাতনে রায়হানের শরীরে ময়নাতদন্তে ১১১টি আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়। এর মধ্যে ১৪টি আঘাত ছিল গুরুতর।

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail