• শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১
  • সর্বশেষ আপডেট : ০১:০১ রাত

নির্মাণের ১৫ বছরেও চালু হয়নি বগুড়ার তিন সরকারি হাসপাতাল

  • প্রকাশিত ০৮:১৬ সকাল আগস্ট ৪, ২০২১
বগুড়া-হাসপাতাল
বগুড়ার নন্দীগ্রাম ২০ শয্যা হাসপাতাল ঢাকা ট্রিবিউন

হাসপাতালগুলো নির্মাণে সরকারের ব্যয় হয় প্রায় ১০ কোটি টাকা

বগুড়ার সান্তাহার, নন্দীগ্রাম ও শিবগঞ্জ উপজেলায় ১৫ বছর আগে একটি করে ২০ শয্যার হাসপাতাল নির্মাণ করে সরকার। এতে ব্যয় হয় প্রায় ১০ কোটি টাকা। দীর্ঘদিন পেরিয়ে গেলেও এই তিনটি হাসপাতালের কার্যক্রম পুরোপুরি চালু হয়নি। তিনটি চিকিৎসালয়ের জন্যই আনা লাখ লাখ টাকার সরঞ্জাম বাক্সবন্দি অবস্থায় পড়ে পড়ে নষ্ট হচ্ছে।

হাসপাতাল তিনটি কবে নাগাদ চালু হবে সে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নিশ্চিত করে বলতে পারছে না।

তবে জেলা সিভিল সার্জন ডা. গওসুল আজিম চৌধুরী জানান, বর্তমানে হাসপাতালগুলোর বহির্বিভাগ চালু আছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে লোকবল চাওয়া হয়েছে। লোকবল নিয়োগ হলে হাসপাতালগুলো পুরোপুরি চালু করা সম্ভব হবে।

বগুড়া জেলা স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্র জানায়, ২০০২ সালে বগুড়ার নন্দীগ্রামে ২০ শয্যার হাসপাতালটির ভিত্তিপ্রস্তুর স্থাপন করা হয়। তিন কোটি ২৬ লাখ ৭৩ হাজার ১৬৮ টাকা ব্যয়ে নির্মাণের পর ২০০৬ সালে এটি উদ্বোধন করা হয়।

প্রায় একই সময়ে আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহারে ২০ শয্যা হাসপাতালটির নির্মাণকাজ শুরু হয়। এর নির্মাণ ব্যয় ধরা হয় তিন কোটি ৩৩ লাখ ৪২ হাজার ৪৮৮ টাকা।

আর শিবগঞ্জ উপজেলার আলিয়ারহাটে ২০ শয্যার হাসপাতালটি নির্মাণে ব্যয় হয় চার কোটি ৩২ লাখ টাকা। প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি সরবরাহ করা হলেও গত ১৫ বছরে হাসপাতালটি চালু করা হয়নি।

যন্ত্রপাতিগুলো উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন জায়গায় বাক্সবন্দি হয়ে পড়ে আছে। চিকিৎসক-নার্স তো দূরের কথা, এসব হাসপাতালের জন্য আলাদা ওষুধও বরাদ্দ হয় না। চালু না হওয়ার কারণ হিসেবে বগুড়ার স্বাস্থ্য বিভাগ জনবল বরাদ্দ না হওয়াকে দায়ী করছে।

জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র বলছে, ২০০৮ সালে নন্দীগ্রাম হাসপাতালের জন্য ১৮টি পদ সৃজন করা হয়েছিল। এর মধ্যে একজন চিকিৎসা কর্মকর্তা, ছয়জন চিকিৎসক, পাঁচজন নার্স, একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট, একজন ফার্মাসিস্ট ও একজন ল্যাব সহকারী। শিবগঞ্জের আলিয়ারহাট হাসপাতালে চিকিৎসা কর্মকর্তাসহ ১১ জনকে পদায়ন করা হয়। সান্তাহার হাসপাতালেও কিছু পদ সৃষ্টি করা হয়েছিল। তবে পরিচ্ছন্নতা কর্মী, পিয়ন, আয়া, ওষুধ বরাদ্দ না থাকাসহ বিভিন্ন সংকটে তাদের সেখানে রাখা সম্ভব হয়নি। পরে পদায়ন পাওয়া কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সংশ্লিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সংযুক্ত করা হয়।

এদিকে, লোকবল পদায়ন না হওয়াসহ নানা কারণে প্রায় ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হাসপাতাল তিনটি দীর্ঘদিনেও চালু না হওয়ায় সেখানে ভুতুড়ে পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। অনেক সময় বৈদ্যুতিক বাতি থাকে না। প্রয়োজনীয় নিরাপত্তাকর্মী ও নৈশপ্রহরী না থাকায় হাসপাতাল এলাকা মাদকসেবীদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ব্যবহৃত না হওয়ায় হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারের যন্ত্রপাতি, এয়ারকন্ডিশন ও অন্যান্য যন্ত্রপাতি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে নন্দীগ্রাম পৌরসভার সাবেক মেয়র সুশান্ত কুমার বলেন, “হাসপাতালটি চালু হলে কাহালু ও নন্দীগ্রাম দুটি উপজেলার অন্তত দুই লাখ মানুষ সেবা পেতে পারতেন। এসব রোগী বাধ্য হয়ে ক্লিনিকমুখী হচ্ছেন। অথচ অজ্ঞাত কারণে হাসপাতাল চালুর উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না।”

অন্যদিকে, বগুড়া শহর থেকে শিবগঞ্জের আলিয়ারহাট হাসপাতালটি প্রায় ১৭ কিলোমিটার ও উপজেলা সদর থেকে পাঁচ কিলোমিটার দূরে। এখানে প্রেষণে একজন উপ-সহকারী কমিউনিটি চিকিৎসা কর্মকর্তা ও একজন ফার্মাসিস্ট রয়েছেন। তারা জরুরি প্রয়োজনে রোগী এলে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। এখানে একজন নিরাপত্তাকর্মী আছেন।

এছাড়া, আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার পৌরসভাসহ আশপাশের লক্ষাধিক মানুষের জন্য কোনো চিকিৎসাকেন্দ্র নেই। তাদের চিকিৎসার জন্য প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দূরে পার্শ্ববর্তী নওগাঁ সদর হাসপাতাল বা আট কিলোমিটার দূরে আদমদীঘি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যেতে হয়। সান্তাহার হাসপাতালটি চালু হলে জনগণের দুর্ভোগ কমে যেতো।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. গওসুল আজিম চৌধুরী বলেন, “লোকবলের অভাবে সান্তাহার, নন্দীগ্রাম ও শিবগঞ্জের আলিয়ারহাটে ২০ শয্যার হাসপাতাল তিনটির কার্যক্রম শুরু করা সম্ভব যাচ্ছে না। তবে বর্তমানে এখানে বহির্বিভাগে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। লোকবল চেয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে লেখালেখি করা হয়েছে। পেলে হাসপাতালগুলো পুরোপুরি চালু করা সম্ভব হবে।”

তিনি আরও বলেন, “এসব হাসপাতালের জন্য বরাদ্দ মূল্যবান মেশিনপত্র পার্শ্ববর্তী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রাখা হয়েছে। এসব নষ্ট হওয়ার সুযোগ নেই।”


50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail