• সোমবার, নভেম্বর ২৯, ২০২১
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:০১ রাত

পাথর তুলে শাহ আরেফিন টিলাকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিয়েছেন এক ইজারাদার

  • প্রকাশিত ০৯:০৮ রাত অক্টোবর ১৪, ২০২১
সিলেট
পাথর উত্তোলনের কারণে সিলেটের শাহ আরেফিন টিলার বর্তমান দুরবস্থা ঢাকা ট্রিবিউন

অভিযুক্তের বিরুদ্ধে এক বছরের জন্য ইজারা নিয়ে ১৫ বছর ভোগদখলের অভিযোগ রয়েছে

সিলেটের শাহ আরেফিন টিলা থেকে ২৫১ কোটি ৫২ লাখ টাকা মূল্যের ৬২ লাখ ৮৮ হাজার ৭৫০ ঘনফুট পাথর অবৈধভাবে উত্তোলন ও আত্মসাতের অভিযোগে ইজারাদার মোহাম্মদ আলীর (৪০) বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। 

বুধবার (১৩ অক্টোবর) রাতে সিলেটের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে দুদকের সহকারী পরিচালক মো. ইসমাইল হোসেন বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

দুদকের সহকারী পরিচালক মো. ইসমাইল জানান, সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চিকাঢুরা মৌজার শাহ আরেফিন টিলা থেকে পাথর উত্তোলনের পর আত্মসাত করা হয়েছে। মেসার্স বশির কোম্পানির নামে ইজারাদার মোহাম্মদ আলী ১৩টি শর্তে ২০০৫ সালের ৫ এপ্রিল থেকে জায়গাটি এক বছরের জন্য ইজারা নেন। কিন্তু খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরোর নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সেখানে পাথর উত্তোলন করেন তিনি।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীনে খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরো থেকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চিকাঢুরা মৌজার শাহ আরেফিন টিলার ২৫ হেক্টর (৬১ একর) এলাকা থেকে সাধারণ পাথর উত্তোলনের এক বছরের জন্য লিজ নেয় বশির অ্যান্ড কোং। 

ইজারা গ্রহীতা হিসেবে সর্বপ্রথম পাথর মহাল হিসেবে সাধারণ পাথর উত্তোলনের জন্য ৬১ একর জমি ইজারা নিলেও মোহাম্মদ আলী খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরোর নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ১৩৭.৫০ একর জায়গা জুড়ে অবস্থিত সম্পূর্ণ টিলা থেকে পাথর উত্তোলন করেন। পাথর উত্তোলনের সময় পরিবেশ সংরক্ষণ বিধিমালা, ১৯৯৭ অনুসারে পরিবেশগত ছাড়পত্র গ্রহণের বাধ্যবাধকতা থাকলেও তিনি তা গ্রহণ করেননি।

দুদকের অভিযোগ, সার্বিক বিচারে অবৈধভাবে ওই টিলা কেটে করে পাথর উত্তোলন করায় পরিবেশ ও প্রতিবেশগত অবস্থার ক্ষতি হয়েছে। অর্থাৎ অবৈধভাবে প্রভাব খাটিয়ে ১৩৭ একর জায়গাজুড়ে অবস্থিত সম্পূর্ণ টিলা থেকে অবৈধ উপায়ে ২৫২,৭৫,৯০,০০০ টাকা মূল্যের ৬২,৮৮,৭৫০ ঘনফুট সরকারি পাথর প্রতারণামূলকভাবে তিনি সরকারি সম্পদের ক্ষতি করেছেন। যা দণ্ডবিধির ৪০২/৪০৬ ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) সিলেট বিভাগীয় সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট শাহ শাহেদা আক্তার জানান, শাহ আরেফিন কোয়ারির কথিত লিজ গ্রহীতা বশির অ্যান্ড কোং-এর পক্ষে মোহাম্মদ আলীর দায়ের করা রিটের কারণে এ কোয়ারিতে পাথর উত্তোলন বন্ধ করা যাচ্ছিল না। আদালতে দফায় দফায় রিট করে তিনি কোয়ারি থেকে প্রায় ১৫ বছর ইজারা আদায় করেন।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুমন আচার্য জানান, ২০০৪ সালে উচ্চ আদালতে দায়ের করা রিটে বশির অ্যান্ড কোং-এর পক্ষে মোহাম্মদ আলী পর্যায়ক্রমে রিটের মাধ্যমে সময় বাড়িয়ে পাথর উত্তোলন করে আসছিলেন। ২০২০ সালের ২১ জানুয়ারি এ আদেশের শুনানিতে এপ্রিল পর্যন্ত পাথর উত্তোলনের সময় বাড়ানো হয়। এর বিপরীতে সরকারপক্ষ উচ্চ আদালতে যান। উচ্চ আদালত মোহাম্মদ আলীর করা রিট আদেশ স্থগিত করে দেন। ফলে ওই বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে ওই কোয়ারিতে পাথর উত্তোলন বন্ধ রয়েছে।

২০১৭ সালে শাহ আরেফিন টিলা থেকে পাথর উত্তোলনের সময় একসঙ্গে ৫ শ্রমিকের মৃত্যুর পর বিষয়টি সারাদেশে ব্যাপকভাবে আলোচিত হয়। 

এ অবস্থায় সিলেটের তৎকালীন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) আবু সাফায়াত মুহাম্মদ শাহেদুল ইসলামকে প্রধান করে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত প্রতিবেদনে ৬৫ একর ভূমির ইজারা নিয়ে ১৩৭ একরে ধ্বংসযজ্ঞ চালানোর কথা বলা হয়। তদন্ত কমিটি টিলা ধ্বংসে জড়িত ৪৭ জনের নামের একটি তালিকা প্রকাশ করে।

বেলার তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালের ২৩ জানুয়ারি থেকে থেকে ২০২০ সালের ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত তিন বছরে সিলেটের ৭টি পাথর কোয়ারিতে পাথর উত্তোলনের সময় ৭৬ পাথর শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে শাহ আরফিন টিলায় সর্বোচ্চ ২৮ শ্রমিকের মৃত্যু হয়।

এছাড়া, জাফলংয়ে ২১, ভোলাগঞ্জে ১৩, বিছনাকান্দিতে ৫, লোভাছড়ায় ৮ এবং উৎমা ছড়া কোয়ারিতে ১ জন শ্রমিকের মৃত্যু হয়ে। আহত হয়েছেন অন্তত ২০ শ্রমিক।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সরকারি খাস খতিয়ানের ১৩৭ দশমিক ৫০ একর জায়গায় শাহ আরেফিন টিলা। 

প্রচলিত ইতিহাস অনুযায়ী, প্রায় ৭০০ বছর আগে হযরত শাহজালালের (র.) অন্যতম সফরসঙ্গী হযরত শাহ আরেফিন খাসিয়া পাহাড় এলাকা পরিভ্রমণে গেলে সেখানে বিশ্রাম নিতেন। এরপর থেকে ওই টিলার নাম হয়েছে শাহ আরেফিন টিলা। লালচে, বাদামি ও আঠালো মাটির এ টিলার নিচে রয়েছে বড় বড় পাথর। এসব পাথর উত্তোলন করতে চলে টিলা কাটা। বর্তমানে এ টিলার অস্তিত্বই নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। টিলা এলাকা এখন অনেকটাই বিরানভূমিতে পরিণত হয়েছে।

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail