• শুক্রবার, ডিসেম্বর ০৩, ২০২১
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:১২ রাত

কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাসের মন্তব্যের জেরে উত্তাল রাজশাহী

  • প্রকাশিত ১০:২৮ রাত নভেম্বর ২৫, ২০২১
রাজশাহী-বঙ্গবন্ধু-মেয়র
কাটাখালীর পৌর মেয়র আব্বাসের মন্তব্যের জেরে উত্তাল রাজশাহী ঢাকা ট্রিবিউন

বঙ্গবন্ধুকে অবমাননা করে কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলীর বক্তব্যের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) কাউন্সিলররাও

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরাল নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য এবং রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র ও আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকে নিয়ে অশ্লীল মন্তব্য করার প্রতিবাদে উত্তাল রাজশাহী।

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে বিক্ষুব্ধ কর্মী-সমর্থকরা। তারা কাটাখালী পৌর মেয়র আব্বাস আলীকে অনতিবিলম্বে গ্রেপ্তার, দল থেকে বহিষ্কার ও মেয়র পদ থেকে অপসারণের দাবি জানিয়েছেন। একই সঙ্গে আব্বাস আলীকে রাজশাহীতে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে। এদিন দুপুরে একটি রাজশাহীর পবা-মোহনপুর আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন সংবাদ সম্মেলনে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্য করায় আব্বাস আলীকে আইনের আওতায় এনে রাষ্ট্রীয়ভাবে শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আয়েন উদ্দিন বলেন, “জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালির অনুভূতি ও আবেগের জায়গা। তাকে নিয়ে কটূক্তি ও অশোভন মন্তব্য করা রাষ্ট্রদ্রোহিতার শামিল। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে এমন কটূক্তি ও অবমাননাকর মন্তব্যে সারাদেশের মানুষ চরমভাবে মর্মাহত। তার ধৃষ্টতাপূর্ণ অশালীন মন্তব্যের প্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য পদ থেকে আজীবনের জন্য শুধু বহিষ্কার নয় দ্রুত গ্রেপ্তারসহ রাষ্ট্রীয়ভাবে তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। শুক্রবার কাউন্সিলরবিকেলে জেলা আওয়ামী লীগের জরুরী সভা আছে। সেই সভায় মেয়র আব্বাসের জেলার সদস্য পদ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। জনপ্রতিনিধিদের গ্রেপ্তার করতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অনুমতি লাগে। আমি প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। প্রক্রিয়া চলছে। দ্রুত গ্রেপ্তার হয়ে যাবে।”

এমপি আয়েন বলেন, “রাজশাহীর প্রবেশ মুখে যে গেট এবং সেখানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল নির্মাণে প্রতিহতের ঘোষণা দিয়েছে মেয়র আব্বাস। সেই গেট এবং বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল আমি নির্মাণ করার ব্যবস্থা নিব। ইতোমধ্যে এর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। যেহেতু সেটি করপোরেশনের তিন দিকই আমার নির্বাচনী এলাকা সেহেতু বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালসহ তিনিটি প্রবেশ গেটই করার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।”

এদিকে বঙ্গবন্ধুকে অবমাননা করে কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলীর বক্তব্যের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) কাউন্সিলররা।

কাউন্সিলররা বলেন, “আব্বাস আলীর বক্তব্য অসাংবিধানিক, মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এবং আওয়ামী লীগের চেতনা ও নীতিমালার পরিপন্থী। এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। তার পিতা বঙ্গবন্ধুর রক্তবন্ধু জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান। মেয়র লিটনকে নিয়ে অকথ্য, অশালীন, অশ্রাব্য ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করেছেন আব্বাস আলী। এতে আমরা কাউন্সিলররা চরমভাবে ক্ষুব্ধ ও মর্মাহত।”

কাউন্সিলরদের দেওয়া বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, আমরা কাউন্সিলররা অনতিবিলম্বে মেয়র আব্বাস আলীকে আওয়ামী লীগ থেকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার জানাচ্ছি। পাশাপাশি রাজশাহীর বোয়ালিয়া মডেল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় তাকে গ্রেপ্তারের দাবি জানাচ্ছি।

রাজশাহী মহানগর বীর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডের কমান্ডার ডা. আব্দুল মান্নান বলেন, “মুক্তিযোদ্ধারা বেঁচে থাকতে স্বাধীনতা বিরোধীদের চক্রান্ত বাস্তবায়ন হবে না। বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল নিয়ে ধৃষ্টতা দেখানো কাটাখালীর পৌর মেয়র আব্বাস আলীকে অবিলম্বে দল থেকে বহিষ্কার করে শাস্তির আওতায় নিয়ে আসতে হবে। এদেশে পাকিস্তানি ভাবধারার এজেন্ডা বাস্তবায়নে আওয়ামী লীগের ভুঁইফোড় কিছু নেতা গোপনে কাজ করছে। এরা কোথায় সাহস পাচ্ছে এমন ধৃষ্টতা দেখানোর? এদের পেছনে নিশ্চয়ই ওই জামাত-শিবিরের ইন্ধন রয়েছে। তাদের এই হীন উদ্দেশ্য কখনোই বাস্তবায়ন হতে দেওয়া যাবে না। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার কাছে আহ্বান নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দেওয়ার আগে তাদের অতীত পর্যালোচনা করে প্রকৃত ত্যাগী নেতাদের বাছাই করুন। যেন আব্বাসের মতো কোনো কুলাঙ্গাররা দলে অনুপ্রবেশ না করে।”

রাজশাহীর কবিকুঞ্জ ও মহানগর বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন প্রামাণিক বলেন, “অত্যন্ত দুঃখ নিয়ে আজ মুক্তিযোদ্ধাদের রাজপথে নামতে হয়েছে।  খোলস পাল্টিয়ে স্বাধীনতা বিরোধীরা সক্রিয় রয়েছে। সরকার ও মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। যেখানে আব্বাসের মতো আওয়ামী লীগের অনুপ্রবেশকারীরা ষড়যন্ত্রের অংশ কি-না? তা খতিয়ে দেখতে হবে।”

এ সময় তিনি এ ঘটনার সঠিক তদন্ত করে দ্রুত সময়ের মধ্যে আব্বাসের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ও আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।  

প্রসঙ্গত, সোমবার (২২ নভেম্বর) রাত থেকে পৌর মেয়র আব্বাসের বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালকে নিয়ে কটূক্তিমূলক বক্তব্য অডিও রেকর্ড ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ১ মিনিট ৫১ সেকেন্ডের অডিও ক্লিপটিতে মেয়র আব্বাসকে বলতে শোনা যায়, “ওই গেটটি দ্রুত নির্মাণ হবে। তবে আমরা যে ফার্মকে কাজটি দিয়েছি, তারা গেটের ওপরে বঙ্গবন্ধুর যে ম্যুরাল বসানোর ডিজাইন দিয়েছে, সেটি ইসলামি দৃষ্টিতে সঠিক না। তাই আমি সেটিকে বাদ দিতে বলেছি..”

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail