Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

জিয়া বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার বন্ধ করেছিল: পর্যটনমন্ত্রী

পর্যটনমন্ত্রী বলেন, ‘জিয়া বঙ্গবন্ধুর খুনিদের লালন-পালন করেছে এবং বিদেশে পাঠিয়েছে'।

আপডেট : ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১১:২৫ পিএম

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী এ কে এম শাহাজাহান কামাল এমপি বলেছেন, ‘ক্ষমতায় থাকাকালে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালন করতে দেয়নি জিয়াউর রহমান। ১৯৮১ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে তাঁর পিতার ধানমন্ডি ৩২ নম্বর বাড়িতে প্রবেশ করতে দেয়নি জিয়া।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে লক্ষ্মীপুর পুলিশ প্রশাসনের উদ্যোগে, স্বাধীনতার মহান স্থপতি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে শোকসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে  তিনি একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে পরাজিত শক্তি জামায়াতে ইসলামী ও মুসলিম লীগ এই দেশে রাজাকার আলবদর সৃষ্টি করেছে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার জন্য। তারা জিয়ার সহযোগিতা নিয়ে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরিকল্পনা করে। ১৫ আগস্ট রাতে বঙ্গবন্ধুকে স-পরিবারে হত্যা করে।’

তিনি বলেন, ‘জিয়া বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার বন্ধ করেছিল এবং খুনিদের লালন-পালন করেছে এবং বিদেশে পাঠিয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতা আসার পর দেশের প্রচলিত আইনে তাদের বিচার করেছে, যারা দেশে ছিল ধরা পড়েছে, তাদের ফাঁসি হয়েছে। বিদেশে পলাতক সাজাপ্রাপ্ত আসামীদের ধরে নিয়ে এসে শাস্তি দেওয়া হবে।’

পুলিশ জনগণের বন্ধু উল্লেখ করে শাহাজাহান কামাল বলেন, ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ রাতে পাকিস্তান সামরিক বাহিনী প্রথমে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় পুলিশ অফিসার ও পুলিশ সদস্যদের হত্যা করেছিল। বিএনপিও ২০১৪ সালে জাতীয় নির্বাচনে না গিয়ে দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করে তারা পুলিশের ওপর হামলা করে পুলিশ হত্যা করে। তারা এখনও ষড়যন্ত্রে লিপ্ত।

পুলিশ লাইন্স শহীদ গিয়াস উদ্দিন মঞ্চে আয়োজিত শোক সভায় পুলিশ সুপার আ স ম মাহাতাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন, সদর উপজেলা নির্বাহী র্কমকর্তা মো. শাহজাহান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর (সার্কেল) আনোয়ার হোসেন, সহকারি পুলিশ সুপার (রামগতি সার্কেল) খন্দকার শাহনেওয়াজ, ডি আই ওয়ান মো. ইকবাল হোসেন প্রমুখ।

About

Popular Links