Thursday, June 13, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

স্টেরয়েড পুশকৃত গরু শণাক্তে খুলনায় মেডিকেল টিম

পশু পর্যবেক্ষণ ও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা প্রদানের জন্য ৩৭টি মেডিকেল টিম গঠন করেছে খুলনার জেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগ।

আপডেট : ১৮ আগস্ট ২০১৮, ১১:৫৩ এএম

খুলনা জেলা সদরসহ ৯ উপজেলার ২৮ পশুর হাটে ইতোমধ্যেই গরু-ছাগল কেনা-বেঁচা শুরু হয়েছে। হাটে মোটা মোটা গরু দেখে ক্রেতারা সন্দিহান হয়ে পড়েছেন। ক্ষতিকর ইনজেকশন পুশ করা হচ্ছে গরুকে। ক্রেতারা গরু কেনার আগে গরুর শারীরিক অবস্থা বা সুস্থতা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে চান। এ অবস্থায় হাটের পশু পর্যবেক্ষণ ও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা প্রদানের জন্য ৩৭টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। খুলনা জেলা প্রাণী সম্পদ বিভাগ এ টিমগুলো গঠন করেছে।

খুলনার অতিরিক্ত জেলা প্রার্ণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ অরুণ কান্তি ম-ল জানান, ‘হাটে হাটে মেডিকেল টিম দায়িত্বে দেওয়া হয়েছে। এই টিম মূলত ক্ষতিকর স্টেরয়েড ইনজেকশন পুশ করা গরু হাটে আসছে কী না তা মনিটরিং করছে। পাশাপাশি কোন গরুর চিকিৎসা প্রয়োজন হলে তা দেওয়া হবে এই টিমের কাজ’।  

খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) পরিচালিত জোড়াগেট পশুর হাট পরিচালনা কমিটির আহবায়ক কাউন্সিলর মোঃ শামসুজ্জামান মিয়া স্বপন বলেন, ‘এ হাটে ক্ষতিকর ইনজেকশন বা ট্যাবলেট খাওয়ানো কিংবা অন্য কোন ক্ষতিকর দ্রবণ খাওয়ানোর মাধ্যমে মোটা তাজা করা গরু আনা হলে তা শণাক্ত করার জন্য ২টি মেডিকেল টিম রয়েছে। কোন প্রকার অসুস্থ্য গরু ছাগল এ হাটে স্থান দেওয়া হবে না’। 

নড়াইল থেকে আসা গরু ব্যপারী রবি শেখ জানান, তিনি ৯ মাস আগে একটি দুর্বল গরু কিনেছিলেন। যা ৯ মাস ধরে গমে ভুষি, কলই’র ভুষিসহ উন্নতমানের খাবার খাওয়ানোর মাধ্যমে মোটা তাজা করা হয়। গরুটির দাম হেকেছেন ৬ লাখ টাকা। শুক্রবার দুপুরে একজন সাড়ে ৩ লাখ টাকা দাম বলেছেন। তিনি বিক্রি করতে আগ্রহী হননি। তিনি আরও একটু দাম বৃদ্ধির জন্য অপেক্ষা করছেন। তিনি জানান, গরুটির পেছনে দৈনিক ৪শ’ টাকার খাদ্য সামগ্রি খাদ্য হিসেবে ব্যয় করতে হয়। 

এদিকে পশুরহাটের কারণে জনবহুল এলাকায় নিরাপত্তা ও যানজট নিরসনে ৪৯৬ জন সশস্ত্র পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের (কেএমপি) অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার রাশিদা বেগম জানান, জোড়াগেট পশুর হাটে ১শ’ জন এবং ফুলবাড়িগেট পশুর হাটে ৫০ জন সশস্ত্র পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে। 


About

Popular Links