Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

নারায়ণগঞ্জে হাসপাতাল সুপারসহ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ১৩ স্বাস্থ্যকর্মী

‘সবার নমুনা সংগ্রহ করা হবে। যাদের নেগেটিভ আসবে তাদের দিয়ে হাসপাতালের কার্যক্রম চালাতে হবে। আগে হাসপাতালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে’

আপডেট : ১৫ এপ্রিল ২০২০, ০৯:০৬ পিএম

করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য প্রস্তুত করা নারায়ণগঞ্জের খানপুরের ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের চিকিৎসা তত্ত্বাবধায়ক ডা. গৌতম রায়সহ নতুন করে ১৩ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

বুধবার (১৫ এপ্রিল) বিকেলে খানপুর হাসপাতালের আবাসিক ডাক্তার (আরএমও) সামসুদ্দোহা সঞ্চয় এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, এই পর্যন্ত ৪ চিকিৎসক, ৪ নার্স, অফিস স্টাফ, ওয়ার্ড বয়, অফিস সহকারীসহ মোট ১৩ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া নতুন করে ১৫ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৬ এপ্রিল) তাদের ফল আসলে এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

তিনি বলেন, “নতুন আক্রান্ত ১৩ জনের মধ্যে সবার বাসা নারায়ণগঞ্জ, সুপার গৌতম রায় থাকেন তার বাসভবনে। আমরা ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জনের সাথে কথা বলেছি, সিদ্ধান্ত নিয়েছি আক্রান্ত ১৩ জনের মধ্যে যাদের সমস্যা কম অর্থাৎ উপসর্গ নাই তবে পজিটিভ তাদের চিকিৎসা দিয়ে বাসায় হোম আইসোলেশনে পাঠিয়ে দেব।”

সামসুদ্দোহা সঞ্চয় বলেন, “খানপুর হাসপাতালের যত স্টাফ আছে সবাইকে টেস্ট করাতে হবে আর তা যদি একদিনে পারা যায় সেটিই করতে হবে। আমরা আশঙ্কা করছি যাদের টেস্ট করানো যায়নি তাদের থেকেও অনেকের করোনাভাইরাস পজিটিভ আসবে। গতকাল ২১ জনের টেস্টে ১৩ জন পজিটিভ এসেছে, আজ নমুনা দিয়েছি ১৫ জনের।”

তিনি আরও বলেন, “আগামীকাল সবার নমুনা সংগ্রহ করা হবে। যাদের নেগেটিভ আসবে তাদের দিয়ে হাসপাতালের কার্যক্রম চালাতে হবে। আগে হাসপাতালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। অন্য রোগের চিকিৎসা নিতে খানপুরে গেলেও যে কেউ আক্রান্তের সম্ভাবনা রয়েছে, শুধুমাত্র খানপুর হাসপাতালে যাওয়ার কারণে। আসলে এখন খানপুর হাসপাতালটাকেই লকডাউন করা উচিত। এটি আমি সিভিল সার্জনকে জানিয়েছি। আগে পুরো হাসপাতাল লকডাউন করে সকলের করোনাভাইরাস টেস্ট করিয়ে হাসপাতাল জীবানুমুক্ত করা প্রয়োজন। নতুবা এখান থেকে বাইরেও ট্রান্সমিশন হতে পারে।”

About

Popular Links