Saturday, May 18, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘তিনদিন ধইরা না খাওয়া, চান তো মাইরা ফালান’

লকডাউন উপেক্ষা করে নারায়ণগঞ্জ ছাড়ার সময় পুলিশের হাতে আটক এক নারী এভাবেই দুর্দশার বর্ণনা দেন

আপডেট : ১৬ এপ্রিল ২০২০, ০৩:৪৬ পিএম

লকডাউন অমান্য করে এখনও নারায়ণগঞ্জ থেকে গোপনে বিভিন্ন জেলায় যাচ্ছে মানুষ। এতে দেশব্যাপী বাড়ছে সংক্রমণে আশঙ্কা। মঙ্গলবার (১৫ এপ্রিল) দিবাগত রাতে জেলার ফতুল্লা উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে এমন ১২০ জনকে আটকের কথা জানিয়েছে পুলিশ।

বুধবার পুলিশ জানায়, লকডাউন উপেক্ষা করে নারায়ণগঞ্জ ছাড়ার সময় মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টায় ফতুল্লা রেল স্টেশন এলাকায় একটি ট্রাক থেকে ৫০ জন, রাত পৌনে ১২টায় ফতুল্লা পাগলা রসুলপুর এলাকা থেকে ৪০ জন এবং রাত সাড়ে ১২ টায় ফতুল্লার তক্কার মাঠ এলাকা থেকে আরও ৩০ জনকে আটক করা হয়।

আটকদের মধ্যে রয়েছেন নারী-পুরুষ-শিশুসহ সব বয়সী মানুষ। ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন ঢাকা ট্রিবিউনকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, ওই ১২০ জনের বেশিরভাগই কিশোরগঞ্জ,কুষ্টিয়া ও রাজশাহীতে যাচ্ছিলেন। তাদের বুঝিয়ে-সুঝিয়ে ফেরত পাঠানো হয়েছে।

এদিকে, নারায়ণগঞ্জ ছাড়ার কারণ জানতে চাইলে এক নারী জানান, “আমরা তো ভাড়া থাকি। ভাড়া না দিতে পারলে তো আমগো রাখতো না। আমরা কষ্টে আছি কতদিন ধইরা। আজকে তিন ধইরা না খাইয়া আছি। কাজ নাই খাওনা নাই। আমরা কি করমু এহন কন?”


আরও পড়ুন- নারায়ণগঞ্জ ছেড়ে পালাচ্ছে মানুষ, দেশব্যাপী সংক্রমণ বৃদ্ধির শঙ্কা


তিনি আরও বলেন, “এই যে আমার মাইয়াডা গর্ভবতী। ভালো মন্দ কিছু খাওয়াইতে পারি না। এহন স্যার আপনারা যদি মাইরা লাইতে চান তো মাইরা ফালান।”

আটককৃত একাধিক নারী-পুরুষের অভিযোগ, “আমরা এলাকার চেয়ারম্যান-মেম্বারদের কাছে গেছি। কিন্তু তারা আমাগো দেয় না। সরকার যা দেয় তারাই খাইয়া লায়। আপনারা দেখছেন  না যে ওনারা চাইরশো-পাঁচশো বস্তা ওনারা আটক কইরা রাইখা দেয়।”

এভাবে যাওয়া ঠিক হচ্ছে না স্বীকার করে তারা আরও বলেন, “কিন্তু গ্রামে গেলে ক্ষেতের কয়ডা ধান পামু, দুই-চাইরটা খাইতে  তো পারমু।”

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন জানান, “আমরা তাদের অভিযোগ শুনেছি। স্থানীয় চেয়ারম্যান মেম্বারদের সাথে এ বিষয়ে কথা বলব। নারায়ণগঞ্জকে সংক্রমণের হটস্পট ঘোষণা করা হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে দেশের বিভিন্ন জেলায় নারায়ণগঞ্জের লোকজন গিয়ে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ছড়াচ্ছে। তাই নারায়ণগঞ্জ থেকে যাতে কেউ না বের হতে পারে তা নিশ্চিত করতে পুলিশ নিয়মিত অভিযান চালাচ্ছে।”

উল্লেখ্য, এর আগে ১৪ এপ্রিল রাতে ফতুল্লায় বিভিন্ন স্থান থেকে পালিয়ে যাওয়ার সময় পিকআপ ১টি ট্রাক ও ১টি বাল্কহেডসহ ৪ শতাধিক নারী-পুরুষকে আটক করে পুলিশ। অন্যদিকে শনিবার থেকে সোমবার পর্যন্ত এ তিনদিনে আরো ৫ শতাধিক মানুষকে আটক করা হয়।

About

Popular Links