Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘আমরা এহ্যানের ভোটার না, তাই কেউ সাহায্য দ্যায় না’

গত একমাস ধরে কাজ না থাকায় এভাবে হতাশা প্রকাশ করেন গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার সিঙ্গারা বিক্রেতা নশু শেখ  

আপডেট : ২৫ এপ্রিল ২০২০, ১০:৫৩ এএম

“আমরা এহ্যানের ভোটার না, তাই কেউ আমাগে সাহায্য দ্যায় না। চেয়ারম্যান-মেম্বর ও অনেক নিত্যাগে কাছে গ্যাছি কেউ এটটু সাহায্য করেনাই। সবাই বলে তুমরা এহ্যানের ভোটার না, যেহ্যানের ভোটার সেহ্যানে যাও।”

গত একমাস ধরে কর্মহীন হয়ে পড়া গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার রামদিয়া বাজারের সিঙ্গারা বিক্রেতা নশু শেখ (৪৫) এভাবেই   বলছিলেন হতাশার কথাগুলো। দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে ওই বাজারের ভূমি অফিসের পাশে ফুটপাতে বসে সিঙ্গাড়া বিক্রি করে করেন গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার বনগ্রামের এই বাসিন্দা। 

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে রামদিয়া বাজারে ভূমি অফিসের পাশে ফুটপাতে বসে সামান্য একটু সিঙ্গারা বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করেন। সরকারি নির্দেশে গত মাসের ২৫ তারিখ থেকে ব্যবসা বন্ধ করে ঘরে থাকছেন তিনি। পরিবারের ৭ সদস্য নিয়ে কর্মহীন হয়ে সরকারি সহায়তার অভাবে দুর্বিষহ দিন কাটাচ্ছেন। কিন্তু এলাকার চেয়ারম্যান, মেম্বার, রাজনৈতিক নেতা ও বিত্তশালীদের কাছে গেলেও সাহায্য পাননি তিনি। ওই এলাকার ভোটার না বলে সবাই তাকে ফিরিয়ে দিয়েছেন। 

 নশুর স্ত্রী আফরোজা বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে  বলেন, “এতদিন হলো স্বামী ঘরে বসা, কাজ-কাম নাই। দুই মাসের বাড়ি ভাড়া বাকি। সরকার থেকে কত চাল-ডাল, তেল দিচ্ছে আমাদের কপালে একটা দানাও জুটল না। ইউনিয়ন পরিষদে গেলে চেয়ারম্যান-মেম্বাররা বলেছেন তোমরা তো এখানের ভোটার না। যেখানের ভোটার সেখানে যাও।” 

বেথুড়ী ইউপি চেয়ারম্যান ক্ষিরোদ রঞ্জন বিশ্বাস বলেন, “আমার কাছে এ রকম কেউ এখন পর্যন্ত আসেনি। তবে ওই পরিবার প্রধানের ছবি ও জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি দিয়ে গেলে আমি তাদের খাদ্য সহায়তা দেব।”

 কাশিয়ানী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাব্বির আহমেদ বলেন, “এরকম কেউ ভোটার না হলেও আমরা তাকে সাহায্য করবো। মানবিক কারণেই আমরা ওই পরিবারকে সাহায্য দেব। যেমন অস্থায়ী বেদেদেরকে আমরা সরকারি খাদ্য সহায়তা দিয়েছি।”

About

Popular Links