Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সরকারি কর্মকর্তাকে মারধর করে কারাগারে আওয়ামী লীগ নেতা

ভুরিভোজের জন্য সরকারি খামারের ছাগল চেয়েছিলেন অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা

আপডেট : ১২ মে ২০২০, ০৬:১৭ পিএম

ভুরিভোজের জন্য সরকারি খামারের ছাগল না দেওয়ায় প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার ওপর হামলার অপরাধে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক কনক পালকে মঙ্গলবার (১২ মে) জেলহাজতে পাঠিয়েছেন আদালত। একই অভিযোগে দায়ের করা মামলায় জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক রনজিত সরকারসহ ২২ জনকে আসামি করা হয়েছে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের (এসএমপি) শাহপরান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাইয়ুম চৌধুরী ঢাকা ট্রিবিউনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ওসি কাইয়ুম চৌধুরী জানান, এ ঘটনায় আটক কনক পালকে ইতোমধ্যে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। রনজিত সরকারসহ অন্যদের ধরতে পুলিশের অভিযান চলছে।

মারধরের শিকার বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আমিনুল ইসলাম ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, “সোমবার দুপুরে কনকের নেতৃত্বে জেলা ছাত্রলীগের কিছু নেতা-কর্মী প্রাণিসম্পদ খামারে প্রজননের কাজে ব্যবহৃত একটি ছাগল খাওয়ার জন্য নিতে চান। আমরা অপারগতা প্রকাশ করলে তারা আমাদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করেন। কিছুক্ষণ পরে জেলা আওয়ামী লীগ নেতা রঞ্জিত সরকার ঘটনাস্থলে এসে আমাদের হুমকি দেন। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে কয়েকজন আমাকে মারধর করেন।”

এর আগেও তাদের কয়েকজন অনুসারী দুটি ছাগল দাবি করেছিলেন বলে জানান এই কর্মকর্তা।

আমিনুল বলেন, “এ খামারে সব মিলিয়ে ২০টি পাঁঠা ছাগল রয়েছে। সেগুলো স্থানীয় খামারিদের চাহিদা মেটানোর জন্য যথেষ্ট নয়। বিষয়টি বুঝিয়ে বলার পরেও তারা ঝামেলা করে ছাগল নিয়ে যেতে চান।”

বিষয়টি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়। তাদের নির্দেশে সোমবার রাতে রঞ্জিত সরকারকে প্রধান আসামি করে থানায় মামলা করেন আমিনুল। 

উল্লেখ্য, রনজিত সরকার সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক। স্থানীয় ছাত্রলীগে তার নিয়ন্ত্রিত “রনজিত গ্রুপ”-এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান মুঠোফোনে ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “ঘটনাটি শুনেছি। আমি বিব্রত।” এর বেশি কিছু বলতে রাজি হননি তিনি।

মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, সিলেট 


About

Popular Links