Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

দোকানে আড্ডা বন্ধ করায় পুলিশের ওপর ডিম নিক্ষেপ!

শেষ পর্যন্ত পুলিশের ঊর্ধতন কমকর্তা ও বাজার বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপে বিষয়টি সমাধান করা হয়

আপডেট : ২৩ জুন ২০২০, ০৩:৪৮ পিএম

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে প্রশাসন আরোপিত বিধি-নিষেধ উপেক্ষা করে খুলনা মহানগরীর ফুলবাড়ীগেট বাজারে চায়ের দোকানে চলছিল আড্ডা। পুলিশ গিয়ে সেই আড্ডা বন্ধ করে দেয়। যার পরিপ্রেক্ষিতে সংঘবদ্ধ হয়ে পুলিশের ওপর ডিম নিক্ষেপ করে স্থানীয়রা। শেষ পর্যন্ত পুলিশের ঊর্ধতন কমকর্তা ও বাজার বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপে বিষয়টি সমাধান করা হয়।

জানা যায়, সোমবার (২২ জুন) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ফুলবাড়ীগেট বাজারের রেললাইনের পাশে ফারুক সরদারের চায়ের দোকানে দলবল নিয়ে আড্ডা দিচ্ছিলেন বেবি ট্যাক্সি শ্রমিক ইউনিয়নের নেতা রওশন। খবর পেয়ে ফুলবাড়ীগেট পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) বিধান চন্দ্র সানা ঘটনাস্থলে যান। দোকান থেকে আড্ডাবাজদের বের করে দেন তিনি। 

স্থানীয় সূত্র জানায়, কিছুক্ষণ পরে রওশন ও তার লোকজন বাজারের মধ্যে এসআই বিধানের ওপর চড়াও হয়ে ডিম ছুঁড়ে মারে। অতি উৎসাহী স্থানীয়রা আরও বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠলে তৎক্ষণাৎ বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জানান এসআই বিধান। খবর পেয়ে দৌলতপুর জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) বায়জিত ইবনে আকবর, খানজাহান আলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শফিকুল ইসলাম ঘটনাস্থলে যান। 

বিষয়টি নিয়ে ওইদিনই বেলা সাড়ে ১২টায় ফুলবাড়ীগেট বাজার বণিক সমিতির সভাপতি বেগ লিয়াকত আলীর অফিসে তারা বৈঠক করেন। ওই বৈঠকে করোনাভাইরাস মহামারিতে জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা বাস্তবায়নে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান বাদে চা, ভাঙাড়ি মালামালের দোকানসহ ফুটপাতের সব ধরনের দোকান বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এসআই বিধান চন্দ্র সানা বলেন, “রেললাইনের পাশে ফারুকের চায়ের দোকানে রওশন ১০ থেকে ১৫ জনকে নিয়ে আড্ডা দিচ্ছিলেন। নিষেধ করায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আমার ওপর ডিম ছুঁড়ে মারে।”

ফুলবাড়ীগেট বাজার বনিক সমিতির সভাপতি বেগ লিয়াকত আলী বলেন, বাজারে সরকারি স্বাস্থ্যবিধি ও জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা বাস্তবায়নে পুলিশ প্রশাসনের পাশাপাশি বণিক সমিতি কঠোরভাবে বাজার মনিটরিং করছে। এরমধ্যে এমন ঘটনা খুবই দুঃখজনক। জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য, কাঁচাবাজার, মৌসুমী ফলের দোকান ও ফার্মেসি ব্যতীত অন্যান্য দোকানপাট, শপিংমল ও ফুটপাতের দোকান বন্ধ থাকবে। এ সকল দোকান খুললে প্রশাসন ব্যবস্থা নিলে এর কোনো দায় সমিতি নেবে না।

About

Popular Links