Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পূর্বপরিকল্পিতভাবে কিশোরীকে হত্যা করেন বাবা-ভাই-মামা

আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে কিশোরীর বড়ভাই

আপডেট : ৩০ জুন ২০২০, ০৮:৪৯ পিএম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলার পূর্বপরিকল্পিতভাবে এক কিশোরীকে (১৬) তার বাবা, বড়ভাই ও মামা মিলে হত্যা করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন ওই তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। 

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, হত্যাকাণ্ডের শিকার ওই কিশোরী নাসিরনগর উপজেলার ধরমণ্ডল গ্রামে তাদের বাড়ির পাশে তার মামার বাড়িতে থাকতো। গত ২২ জুন দুপুরে তাকে বাড়ির পাশে পাটক্ষেতে এক যুবকের সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলেন তার মামা। বিষয়টি ওই কিশোরীর বাবা ও মাকে জানান তিনি। পরদিন ২৩ জুন সকালে বাবা ও মামা মিলে ওই কিশোরীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী ২৩ জুন রাত সাড়ে ১০টার দিকে কিশোরীর বাবা তাকে মামার বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যান। পরে তার গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন বাবা, মামা ও বড়ভাই। হত্যা করে লাশটি স্থানীয় একটি ডোবায় ফেলে দেওয়া হয়। পরে গত শনিবার (২৭ জুন) সকালে ওই কিশোরীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।  

নাসিরনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কবির হোসেন জানান, ওই কিশোরীর লাশ উদ্ধারের পর পুলিশের পক্ষ থেকে মামলার কথা বলা হলেও প্রথমে তার পরিবার রাজি হয়নি। পরে তার মা বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে মামলা দায়ের করেন। এতে পরিবারের প্রতি পুলিশের সন্দেহ হয়। এরপর ওই কিশোরীর মামাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। সেখান থেকে ভুক্তভোগীর বাবা ও বড়ভাইয়ের সম্পৃক্ততার কথা উঠে আসে। এরপর সোমবার (২৯ জুন) রাতে ওই কিশোরীর বাবা ও মঙ্গলবার (৩০ জুন) ভোর রাতে বড়ভাইকে গ্রেফতার করা হয়। 

সোমবার বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফারজানা আহমেদের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন তার মামা। পরে মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন কিশোরীর বড়ভাই। 

কবির হোসেন আরও জানান, আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ার পরই স্বজনেরা পরিকল্পিতভাবে হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটায়।

About

Popular Links