Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

এন্টি-ভেনম গবেষণায় ব্যবহার হবে সেই ‘কিলিং মেশিন’

অন্যান্য সাপ মানুষকে এড়িয়ে চলার চেষ্টা করলেও এ সাপটি স্বভাব ঠিক তার উল্টো

আপডেট : ০৫ জুলাই ২০২০, ০৯:০৩ পিএম

মুন্সীগঞ্জে জেলের চাঁইয়ে ধরা পড়া রাসেলস ভাইপারটি এন্টি-ভেনম গবেষণায় ব্যবহার করা হবে। সাড়ে তিন ফুট লম্বা চন্দ্রবোড়া বা রাসেলস ভাইপার সাপটি এখন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের (চমেক) ভেনম রিসার্চ সেন্টারে রয়েছে। 

রবিবার (৫ জুন) সকাল ৭টার দিকে মুন্সীগঞ্জের সদর উপজেলা থেকে সাপটিকে চমেকের ভেনম রিসার্চ সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয় বলে জানিয়েছেন সেন্টারের সহকারি গবেষক ইব্রাহিম আল হায়দার।

এর আগে শনিবার ভোরে স্থানীয় জেলে আবুল হোসেনের মাছ ধরার চাঁইয়ে সাপটি ধরা পড়ে।

ইব্রাহিম আল হায়দার বলেন, “আমাদের দেশে এখনও এন্টি-ভেনম তৈরি করা সম্ভব হয়নি। বিদেশ থেকে আমদানি করা হয়। ভেনম রিসার্চ সেন্টারের কাজ হলো, এন্টি-ভেনম তৈরি করা যাবে কিনা সেটা গবেষণা করা। এই সাপটি থেকে প্রথমে ভেনম সংগ্রহ করা হবে এবং তা দিয়ে এন্টি-ভেনম তৈরি করে দেখা হবে তা কার্যকর কিনা?”

তিনি আরও বলেন, “ভেনম রিসার্চ সেন্টারে আট প্রজাতির শতাধিক সাপ রয়েছে, যার মধ্যে চন্দ্রবোড়া রয়েছে কমপক্ষে ১০টি। এক সময় বাংলাদেশের অনেক জায়গায় সাপটি পাওয়া যেত। এই প্রজাতির সাপকে এক সময় বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। ২০১৩ সাল থেকে পদ্মা নদীর পাশের এলাকাগুলোতে সাপটি আবার পাওয়া যাচ্ছে।”


আরও পড়ুন-মুন্সীগঞ্জে জেলের চাঁইয়ে ধরা পড়লো ‘কিলিং মেশিন’


এই গবেষক জানান, অনেকে মনে করেন যে, চন্দ্রবোড়া সাপের এন্টি-ভেনম বাংলাদেশে নেই। তা সঠিক নয়। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সোহরাওয়ার্দি হাসপাতাল ও মুগদা জেনারেল হাসপাতালসহ অনেক মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এর এন্টি-ভেনম আছে।

এদিকে, সাপটি সম্পর্কে বাংলাদেশ বন বিভাগের বন্যপ্রাণী ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কর্মকর্তা জোহরা মিলা ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “রাসেলস ভাইপার বাংলাদেশে মহাবিপন্ন প্রাণীর তালিকায় রয়েছে। অন্যান্য সাপ মানুষকে এড়িয়ে চলার চেষ্টা করলেও এ সাপটি স্বভাব ঠিক তার উল্টো। এটি ধাওয়া করে মানুষকে আক্রমণ করে। তাই প্রতিবছরই উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মানুষ কেবল এ সাপটির কামড়েই প্রাণ হারান। আক্রমণের ক্ষিপ্র গতি ও বিষের তীব্রতার কারণে ‘কিলিং মেশিন’ হিসেবে বদনাম রয়েছে সাপটির।”

About

Popular Links