Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

নিউইয়র্কে পাঠাও সহ-প্রতিষ্ঠাতাকে নির্মমভাবে হত্যা

বাংলাদেশে পাঠাও’এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা এই তরুণ একজন ওয়েব ডেভেলপার ছিলেন

আপডেট : ১৫ জুলাই ২০২০, ১০:৩৮ এএম

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের একটি বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্ট থেকে রাইড শেয়ারিং সেবা “পাঠাও”য়ের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ফাহিম সালেহের (৩৩) লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।  

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে নিজস্ব ওই অ্যাপার্টমেন্ট থেকে মাথাবিহীন ক্ষতবিক্ষত লাশটি উদ্ধার করে নিউইয়র্ক পুলিশ। 

সংবাদমাধ্যম নিউ ইয়র্ক পোস্ট জানায়, এক দিন ধরে ফাহিমের কোনো খোঁজ না পেয়ে তার বোন জরুরি সহায়তা নম্বর ৯১১’এ ফোন করেন। এর পরই তার লাশ উদ্ধার করা হয়। 

ফাহিমকে সর্বশেষ সোমবার (১৩ জুলাই) দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়। এ সময় তিনি ভবনটির লিফটে ঢুকছিলেন। পরে আট তলায় লিফট থেকে নামেন তিনি। এদিকে এর পরপরই সিসিটিভি ফুটেজে আরেক ব্যক্তিকে দেখা যায়। তিনি হাতে গ্লোভস, মুখে মাস্ক ও টুপি পরা অবস্থায় ছিলেন।  

নিউইয়র্ক পোস্ট জানায়, আট তলায় ওঠার পর মেঝেতে পড়ে যান ফাহিম। তাকে গুলি করা হয়েছিল বা স্ট্যানগান দিয়ে বিদ্যুতায়িত করা হয়েছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। 

এদিকে ফাহিমের লাশের পাশে একটি ইলেকট্রিক করাত পড়ে ছিলো বলে জানিয়েছে পুলিশ। 

জানা গেছে, গত বছরেই ২ দশমিক ২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করে অ্যাপার্টমেন্টটি কিনেছিলেন ফাহিম। বাংলাদেশে পাঠাও’এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা এই তরুণ একজন ওয়েব ডেভেলপার ছিলেন। এছাড়া তিনি নাইজেরিয়ার লাগোসে একটি মোটরসাইকেল শেয়ারিং কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে (সিইও) দায়িত্ব পালন করছিলেন। 

ফাহিম বেন্টলি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিষয়ে পড়াশোনা করেছেন। তার বাবা সালেহ উদ্দিন চট্টগ্রামের বাসিন্দা। 

এদিকে ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ অ্যাম্বাসির এক কর্মকর্তা ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, তারা বিষয়টি জানেন। স্থানীয় সময় সকালে তারা বিস্তারিত জানাবেন। 

 

About

Popular Links