Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

২৪ ঘণ্টার মধ্যে ঢাকার বর্জ্য অপসারণের পরিকল্পনা

সাতশ’র বেশি যানবাহন ব্যবহার করে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য সরিয়ে ঢাকাকে সাফ করার পরিকল্পনা নিয়েছে নগর কর্তৃপক্ষ

আপডেট : ০১ আগস্ট ২০২০, ১২:২৫ পিএম

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) জানিয়েছে, ঈদের দিন কোরবানির বর্জ্য অপসারণে তাদের ১৮ হাজার কর্মী মাঠে থাকবেন।

সাতশ’র বেশি যানবাহন ব্যবহার করে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য সরিয়ে ঢাকাকে সাফ করার পরিকল্পনা নিয়েছে নগর কর্তৃপক্ষ।

ঈদুল আজহার কোরবানি উপলক্ষে বর্জ্য অপসারণে বিশেষ কর্মসূচি গ্রহণ করার কথা জানিয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, “ইনশাল্লাহ ২৪ ঘণ্টায় কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারিত হবে।”

শনিবার (১ আগস্ট) সকালে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ঈদের প্রথম জামাতে অংশ নেওয়ার পর সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে একথা বলেন তিনি।

মেয়র তাপস বলেন, “আজ আমরা অত্যন্ত আনন্দের সাথে ঈদুল আজহা উদযাপন করব, কোরবানি দেব। কোরবানির পর পশুর যে বর্জ্য সৃষ্টি হবে আমরা সে বর্জ্য দুপুর ২টা থেকে সম্পূর্ণরূপে অপসারণের কার্যক্রম হাতে নিয়েছি।”

পরিচ্ছন্নতাকর্মী থেকে শুরু করে করপোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী কেউ ছুটিতে নেই জানিয়ে ডিএসসিসি মেয়র আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারিত হবে।

তিনি আরও বলেন, এবার অত্যন্ত সুশৃঙ্খলভাবে পশুর হাট পরিচালিত হয়েছে। হাট পরিচালনার পর রাত ১২টার পর থেকেই কোরবানির পশুর হাট-কেন্দ্রিক বর্জ্য অপসারণ কাজ শুরু হয়েছে।

অন্যদিকে, এবার বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে জানিয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছেন,  “কোভিড-১৯ মহামারির সময় কোরবানি হচ্ছে। একারণে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কিছুটা চ্যালেঞ্জিং। 

তিনি বলেন, “আমরা সতর্ক ও নিবেদিত। তবে, পাশাপাশি আমাদের অনুরোধ নাগরিকরাও যেন সচেতন হন। বর্জ্যটা যেন সঠিক জায়গায়, সঠিকভাবে ফেলেন।”

পাশাপাশি, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমে উত্তরে ১১ হাজার ৫০৮ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী ছাড়াও করপোরেশনের কর্মকর্তারা মাঠে থাকবেন। ২৪ ঘণ্টায় কোরবানির পশুর বর্জ্য সংগ্রহের জন্য প্রায় ৬ লাখ বিশেষ ধরনের ব্যাগ বিতরণ করা হবে।

বর্জ্য অপসারণে ভারী ও হালকা মিলিয়ে ৪৩০টি যানবাহন প্রস্তুত রেখেছে উত্তর সিটি কর্তৃপক্ষ। ১১টি পানির গাড়ির মাধ্যমে স্যাভলন ও ব্লিচিং মিশ্রিত পানি ছিটিয়ে কোরবানির স্থান দূষণমুক্ত করা হবে।

ইতোমধ্যে ৫১ টন ব্লিচিং পাউডার ও ৫ লিটার ধারণক্ষমতার ৯৬০ ক্যান তরল জীবাণুনাশক ছেটানোর ব্যবস্থা করা নেওয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছে ডিএনসিসি।

About

Popular Links