Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

'জিন' ছাড়ানোয় সাহায্য করতে গিয়ে মৃত্যু!

এদিকে ঘটনার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে বাদল নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে।

আপডেট : ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৬:৫৬ পিএম

বগুড়ার গাবতলী উপজেলায় জিন ছাড়ানোর কথা বলে বুকের ওপর উঠে লাফালাফি করায় এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।  

গতকাল বুধবার রাতে উপজেলার মহিষাবান ধোড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ওই ব্যক্তির নাম মোফাজ্জল হোসেন (৫০)। তিনি চকমরিয়া গ্রামের মৃত আনসার আলীর ছেলে এবং গোলাবাড়ি বণিক সমিতির নৈশ প্রহরী। 

মোফাজ্জলের ছেলে বাবু মিয়া আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে গাবতলী থানায় ১০ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন।   

এদিকে ঘটনার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে বাদল নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে।

গাবতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল বাশার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

গাবতলীর বাগবাড়ি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর সোহেল রানা জানান, উপজেলার ধোড়া পূর্বপাড়া গ্রামের বাদশার মেয়ে জেমি (১২) জ্বরে আক্রান্ত হয়। ওষুধ খাওয়ার পরও জ্বর না ছাড়ায় বাদশা তাকে মহিষাবান পূর্বপাড়ার কবিরাজ নজরুল ইসলাম ভেটুর কাছে যান। ভেটু মেয়েকে দেখে জানান, তাকে ‘জিনে ধরেছে’। একজন তুলা রাশির জাতক পেলে তার মাধ্যমে ওই জিন ছাড়ানো সম্ভব হবে। 

এরপর ‘জিন’ ছাড়াতে তুলা রাশির জাতক মোফাজ্জল হোসেনকে ডাকা হয়। তিনি হাঁপানিতে আক্রান্ত হলেও একটি শিশুকে বাঁচানোর স্বার্থে রাজি হন। কবিরাজ ভেটু জিন ছাড়াতে আরেকজন কবিরাজ জয়নাল আবেদীনসহ আট থেকে ১০ জনকে সঙ্গে নিয়ে বুধবার রাত ১০টার দিকে ধোড়া গ্রামে ওই শিশুর বাড়িতে যান। 

কবিরাজরা শিশু জেমি ও মোফাজ্জলকে পাশাপাশি শুইয়ে ‘জিন’ ছাড়ানো শুরু করেন। কবিরাজরা ‘মন্ত্র’ পড়তে শুরু করলে অসুস্থ মোফাজ্জল আরও অসুস্থ হয়ে ছটফট করতে থাকেন। 

এ সময় কবিরাজরা বলেন, শিশু জেমির ‘জিন’ মোফাজ্জলের শরীরে ঢুকেছে। একটু পর তাকে ছেড়ে চলে যাবে। পরে কবিরাজ ভেটু ও জয়নাল তার বুকের ওপর উঠে লাফিলাফি করতে থাকেন। এ সময় সাত থেকে আটজন তাকে শক্ত করে ধরে রাখেন। এর এক পর্যায়ে মোফাজ্জলের মৃত্যু হয়। 

মৃত্যুর ঘটনা বুঝতে পেরে দুই কবিরাজ ও শিশু জেমির পরিবারের সদস্যরা বাড়ি থেকে পালিয়ে যান। পরে সাহেলা বেগম নামের প্রতিবেশি এক নারী মোফাজ্জলকে উদ্ধার করে রাত ১২টার দিকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সোহেল রানা আরও জানান, মোফাজ্জলের লাশ উদ্ধার করে শজিমেক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহতের পাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। 

এ বিষয়ে নিহতের ছেলে বাবু কবিরাজ ভেটু, জয়নাল, বাদলসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন। পরে সিএনজিচালক বাদলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

About

Popular Links