Friday, May 31, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

রংপুর বিশ্ববিদ্যালয়: উপাচার্য ক্যাম্পাসে থাকেন কদাচিৎ, প্রশাসনিক কাজে চরম স্থবিরতা

২০১৭ সালের ১৪ জুন রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ উপাচার্য হিসেবে অধ্যাপক নাজমুল আহসান কলিম উল্লাহকে নিয়োগ দেন। নিয়োগের প্রধান শর্ত ছিল তাকে ক্যাম্পাসে সবসময় অবস্থান করতে হবে।

আপডেট : ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৭:৪০ পিএম

রাষ্ট্রপতি কর্তৃক উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার প্রধান শর্ত হিসেবে সার্বক্ষনিক ক্যাম্পাসে অবস্থান করার নির্দেশ থাকলেও তা নিয়মিতই অমান্য করে চলেছেন রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক নাজমুল আহসান কলিম উল্লাহ। উপাচার্যের পদে থাকলেও ক্যাম্পাসে তাকে দেখা যায় খুব কমই। তার নিয়মিত অনুপস্থিতির কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মিত কার্যক্রম ব্যাপকভাবে ব্যাহত হচ্ছে, প্রশাসনিক কাজে দেখা দিয়েছে চরম স্থবির অবস্থা।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনিক বিভাগে অনুসন্ধান করে জানা গেছে, গত আগষ্ট মাসের আগস্টের ১, ১০, ১৪ ও ১৫ ও ১৯ – এই ৫ দিন তিনি ক্যাম্পাসে এসেছেছিলেন। এর মধ্যে ৪ দিন তিনি সকালের বিমানে এসে দুপুরে ফিরে গেছেন আর মাত্র এক রাত তিনি ক্যাম্পাসে তার বাসভবনে রাত্রি যাপন করে পরদিন সকালেই আবার ঢাকায় চলে যান। 

এরপর আবারো টানা ৬ দিন পর সর্বশেষ গত ৪ সেপ্টেম্বর সকালে তিনি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আসেন। আজ ৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৩ দিন ধরে তিনি আবারও ক্যাম্পাসে অনুপস্থিত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, উপাচার্য অধ্যাপক নাজমুল আহসান কলিম উল্লাহ গত বছর মাত্র ৯০ দিন ক্যাম্পাসে ছিলেন তার মধ্যে বেশীর ভাগ সময় তিনি সকালে ঢাকা থেকে বিমানে এসে বিকেলে আবার ঢাকায় ফিরে গেছেন। হাতে গোনা কয়েকদিন ক্যাম্পাসে তার বাসভবনে ছিলেন। 

এভাবে উপাচার্যের দীর্ঘ অনুপস্থিতির কারণে বিভিন্ন ফাইলপত্র সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় দিনের পর দিন পরে থাকে। তার অনুপস্থিতির কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কর্মকান্ডে চরম স্থবিরতা দেখা দিয়েছে বলে বেশ কয়েকজন শিক্ষক জানিয়েছেন। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ২০১৭ সালের ১৪ জুন রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ উপাচার্য হিসেবে অধ্যাপক নাজমুল আহসান কলিম উল্লাহকে নিয়োগ দেন। নিয়োগের প্রধান শর্ত ছিল তাকে ক্যাম্পাসে সবসময় অবস্থান করতে হবে। সেই শর্ত লিখিত ভাবে মেনেই তিনি উপাচার্য পদে নিয়োগ পান। অথচ সেই শর্ত তিনি বারবারই উপেক্ষা করে চলেছেন। ফলে তার অনুপস্থিতির কারনে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়লেও এ ব্যাপারে কোনও পদক্ষেপ নিচ্ছে না শিক্ষা মন্ত্রনালয়। 

এদিকে উপাচার্যের অনুপস্থিতির সুযোগে তার পিএস আমিনুর রহমান এখন অঘোষিত উপাচার্যের ক্ষমতা প্রদর্শন করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। 

এ ব্যাপারে আজ বিকেলে মোবাইল ফোনে আমিনুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘উপাচার্য অনুপস্থিত থাকা মানে কাজ করেন না তা নয়। তিনি কাজ করছেন সেটা ক্যাম্পাসে না থাকলেও তো করেন’। 

উপাচার্যের অনুপস্থিতিতে ক্ষমতা প্রদর্শনের অভিযোগ ‘মিথ্যা’ বলে দাবি করেন তিনি। 

সার্বিক বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ইবরাহিম কবীরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনও মন্তব্য করতে রাজি হন নি। 

উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিম উল্লাহর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। 


About

Popular Links