Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

হেফাজত কেন্দ্র থেকে পালালো ১৭ কিশোরী

কেন্দ্রের দ্বিতীয়তলায় ২০৫ নম্বর কক্ষের কয়েকজন বন্দী লোহার খাটের পায়া দিয়ে জানালার গ্রিল ভেঙে ফেলে বিছানার চাদর ও ওড়না বেঁধে বেয়ে নিচে নেমে বিচ্ছিন্নভাবে পালিয়ে যায়। 

আপডেট : ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০:২০ এএম

গাজীপুরের মোগড়খাল এলাকার নিরাপদ আবাসন কেন্দ্র নামক হেফাজত কেন্দ্র থেকে বিভিন্ন মামলায় গ্রেপ্তার ১৭ কিশোরী শুক্রবার রাতে জানালা ভেঙে পালিয়ে যায়। 

কেন্দ্রের দ্বিতীয়তলায় ২০৫ নম্বর কক্ষের কয়েকজন বন্দী লোহার খাটের পায়া দিয়ে জানালার গ্রিল ভেঙে ফেলে বিছানার চাদর ও ওড়না বেঁধে বেয়ে নিচে নেমে বিচ্ছিন্নভাবে পালিয়ে যায়। ১২টার দিকে পরিদর্শনে গেলে ঘটনা কর্তৃপক্ষের কাছে ধরা পড়ে। কেন্দ্র সুপার জোবাইদা খাতুন এসব তথ্য জানান। 

তিনি বলেন, ‘এইখানে ১৮ বছরের কম বয়সী কিশোরীদের রাখা হয়। এখানে মোট ৩৪ জন কিশোরী থাকে। তাদের মধ্যে ১৭ জন শুক্রবার রাতে পালিয়ে যায়। ঘটনার পর রাতেই গাজীপুর ও টাঙ্গাইলের মির্জাপুর থেকে ১২ জনকে ফের আটক করা হয়েছে’।

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর থানার ওসি এ কে এম মিজানুল হক জানান, ‘শনিবার মির্জাপুর রেলস্টেশনের কাছে তাদের আচরণ সন্দেহজনক হওয়ায় স্থানীয় লোকজন রোহিঙ্গা ভেবে আট কিশোরী ও তারেককে আটক করে পুলিশে দেয়’। 

অন্যদিকে, পেছনের রাস্তা থেকে একজন ও বাসন সড়ক এলাকা থেকে তিনজনকে আটক করে জয়দেবপুর থানার পুলিশ।

এদিকে, মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরীসহ বিভিন্ন উর্ধতন কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

গাজীপুর জেলার পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার বলেন, ‘এমন ঘটনার যাতে আর পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেজন্য কেন্দ্রের কর্মকর্তাদের সতর্ক করা হয়েছে’। পলাতক অন্য ৫ জনকে আটকের চেশটা ছলছে বলেও তিনি সাংবাদিকদের অবহিত করেন। 

এ ঘটনায় মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এবং গাজীপুর জেলা প্রশাসন থেকে পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটিকে ৩ দিন এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক অধিদপ্তরের তদন্ত কমিটিকে ৭ দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

About

Popular Links