Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

মসজিদে বিস্ফোরণ: বাবার অপেক্ষায় ৫ বছরের রাইসা

রাইসার এই অপেক্ষার প্রহর আদৌ কোনোদিন শেষ হবে কিনা তার উত্তর নেই কারো কাছেই

আপডেট : ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:১৮ এএম

“আব্বু কোথায় গেছে? আসে না কেন?” পাঁচ বছরের শিশু রাইসা এখন বাবার প্রতীক্ষায় পথ চেয়ে বসে আছে। ছোট্ট রাইসা এখনও জানে না শুক্রবারের সেই রাতে তার বাবার সাথে ঘটে যাওয়া মর্মান্তিক দুর্ঘটনার কথা। ঘরে কান্নার শব্দ পেলেই এক কোনায় গিয়ে বসে পড়ে। চারদিকে এত কান্নার অর্থ তার বোধগম্য হয়ে উঠছে না ঠিক। গত চার দিন যাবৎ প্রিয় বাবাকে দেখতে না পেয়ে কিছুক্ষণ পরপর রাইসা তার নানা-নানী, মামী'র কাছে জিজ্ঞেস করছে বাবার কথা।

সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর)  বিকেলে আমজাদ হোসেনের  সবুজবাগের বাসায় গিয়ে দেখা যায় দোতলার একটি ঘরে খালাতো ভাই ইব্রাহিম (৯) এর সাথে মলিন মুখ করে বসে আছে রাইসা। পাশের ঘরেই আহাজারির শব্দ।

পরিবারের লোকজন জানান, শুক্রবার বায়তুস সালাত জামে মসজিদের বিস্ফোরণে আহত হন রাইসার বাবা আমজাদ হোসেন ও খালু ইমান হোসেন শেখ। পরে তাদের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইন্সস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়।

সোমবার সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় ইমান হোসেন শেখের। সোমবার বিকেলে তার লাশ দাফন করা হয়।

স্বজনরা জানান,  আমজাদ ও ইমান একসাথে শুক্রবার বায়তুস সালাত জামে মসজিদে এশার নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন। আর ফেরা হয়নি তাদের। আমজাদ হোসেন এখন বেঁচে থাকলেও তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এ সময় কথা হয় আমজাদ হোসেনে একমাত্র মেয়ে রাইসার সাথে। বাবার কথা উঠতেই চোখ ছলছল করে ওঠে তার। বালিশে মুখ চেপে ফুঁপিয়ে কেঁদে উঠে। পাশে ইমান হোসেনের ছেলে নয় বছরের ইব্রাহিম নির্বাক দৃষ্টিতে কিছুক্ষণ তাকিয়ে থেকে বালিশে মুখ লুকিয়ে নেয়।

রাইসার বড় মামী জানান, ইব্রাহিম একটু বোঝে, কিন্তু রাইসা শুধু বাবার কথা জিজ্ঞেস করে। অতটুকু বাচ্চাকে কী জবাব দেবো বলতে পারেন? তাই চুপ করে থাকি।”

রাইসার অপেক্ষার প্রহর আদৌ কোনোদিন শেষ হবে কিনা তার উত্তর নেই কারো কাছেই।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা চামার বাড়ি এলাকার বায়তুস সালাত জামে মসজিদে এশার নামাজের সময় গ্যাসের লাইনের লিকেজ থেকে সৃষ্ট বিস্ফোরণে অর্ধশতাধিক মুসল্লি দগ্ধ হন। এর মধ্যে ২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। আরো ৯ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তবে, মামুন নামে আহত এক ব্যক্তির অবস্থা বর্তমানে আশঙ্কামুক্ত বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

About

Popular Links