Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বাবা-ছেলের এ কেমন মৃত্যু!

বছর দুই আগে স্থানীয় খরারচর আলিয়া মাদরাসায় লেখাপড়া করা অবস্থায় মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েন রায়হান।

আপডেট : ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:৩৩ পিএম

ঢাকার ধামরাই পৌরসভায় একই দিনে মৃত্যু হয়েছে বাবা ও ছেলের। বিষ্ময়কর হলেও সত্যি যে, মৃত্যুর সময় বাবা ছিলেন হাসপাতালে, আর ছেলে কারাগারে বন্দি। গত শনিবার বিকেল ও রাতে আলাদা সময়ে এ ঘটনা ঘটে। 

পুলিশ ও মৃত বাবা-ছেলের পারিবারিক সূত্র জানায়, ধামরাইয়ের রোয়াইল ইউনিয়নের খরারচর গ্রামের আবদুল বাছের মিয়ার (৬০) ছেলে রায়হান (২০)। বছর দুই আগে স্থানীয় খরারচর আলিয়া মাদরাসায় লেখাপড়া করা অবস্থায় মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েন রায়হান। এর পর তাকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। 

গত ২৯ জুলাই ভোরে রায়হান তার মা জামিলা বেগমকে দা দিয়ে গলা কেটে হত্যা করেন। এ সময় চিৎকার শুনে বাবা বাছের মিয়া ও বড় ভাই রতন মিয়া রায়হানকে থামাতে গেলে তাদেরকেও কুপিয়ে জখম করেন তিনি। 

পরে এলাকাবাসী আশঙ্কাজনক অবস্থায় আহত বাছের ও রতনকে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে ভর্তি করে। এসময় রতনকে আটক করে পুলিশে দেওয়া হয়। পরে একটি মামলা করে তাকে জেল হাজতে পাঠায় পুলিশ।

হাসপাতালে দুইদিন চিকিৎসার পর রতন সুস্থ হলেও তার বাছের মিয়াকে প্রায় এক মাস চিকিৎসা দেওয়ার পর বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে গত শনিবার বিকেলে বাছের হঠাৎ অসুস্থ্য হয়ে পড়লে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

অন্যদিকে ওই দিন সন্ধ্যায় জেল হাজতে হঠাৎ অসুস্থ্য হয়ে পড়েন রায়হান। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাত ৮টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ধামরাই থানার উপপরিদর্শক (এসআই) কামাল হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, রোববার সকালে ফ্যাক্সের মাধ্যমে কারাগারে থাকা আসামি রায়হান ঢামেক হাসপাতালে মারা গেছেন বলে জানতে পারেন তিনি। পরে বিষয়টি পরিবারের সদস্যদের জানালে তারা হাসপাতালে গিয়ে তার মৃতদেহ নিয়ে যান। 

About

Popular Links