Sunday, May 26, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা, ডেথ রেফারেন্স-আপিলের শুনানি শুরু

২০০০ সালে শেখ হাসিনার জনসভার প্যান্ডেল তৈরির সময় সেনাবাহিনীর একটি দল ৭৬ কেজি ওজনের বোমা উদ্ধার করে। পরদিন গোপালগঞ্জ সদর থেকে ৮০ কেজি ওজনের আরও একটি বোমা উদ্ধার করা হয়

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:২৫ পিএম

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় ৭৬ কেজি ওজনের বোমা পুঁতে রেখে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টার মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১০ আসামির ডেথ রেফারেন্স ও আপিলের শুনানি শুরু হয়েছে।

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. বদরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল বেঞ্চে এই শুনানি শুরু হয়। এবিষয়ে পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর দিন ঠিক করা হয়েছে।

আদালতে বুধবার রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ড. মো. বশির উল্লাহ, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল এম এম জি সারোয়ার পায়েল। আসামিপক্ষে ছিলেন মোহাম্মদ আহসান।

পরে ড. বশির উল্লাহ বলেন, “শুনানির প্রথম দিনে রাষ্ট্রপক্ষে মামলার পেপারবুক থেকে বিচারিক আদালতের রায়ের অপারেটিং অংশ উপস্থাপন করেছি। এছাড়া একজন আসামির জবানবন্দিও উপস্থাপন করা হয়েছে। আদালত পরবর্তী শুনানির জন্য ২৩ সেপ্টেম্বর দিন রেখেছেন।”

২০০০ সালে কোটালীপাড়া সফরের অংশ হিসেবে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শেখ লুৎফর রহমান সরকারি আদর্শ কলেজ মাঠে ভাষণ দেওয়ার কথা ছিল। সমাবেশের দু’দিন আগে ২০ জুলাই কলেজ প্রাঙ্গণে জনসভার প্যান্ডেল তৈরির সময় শক্তিশালী বোমার অস্তিত্ব পাওয়া যায়। পরে ওই কলেজের উত্তর পাশে সন্তোষ সাধুর দোকান ঘরের সামনে থেকে সেনাবাহিনীর একটি দল ৭৬ কেজি ওজনের বোমাটি উদ্ধার করে। পরদিন ২১ জুলাই গোপালগঞ্জ সদর থেকে ৮০ কেজি ওজনের আরও একটি শক্তিশালী বোমা উদ্ধার করা হয়।

এসব ঘটনায় পৃথক দু’টি মামলা দায়ের হয়। ২০১০ সালে মামলা দুটি ঢাকার ২নং দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর করা হয়। ২০১৭ সালের ২০ আগস্ট দুই মামলার একটিতে ১০ আসামিকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন আদালত।

এছাড়া একজন আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও তিনজনের ১৪ বছর করে কারাদণ্ড দেন ঢাকার ২ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মমতাজ বেগম।

অন্য মামলায় নয়জনকে ২০ বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। রায় ঘোষণার মাত্র এক সপ্তাহের মাথায় ২৭ আগস্ট বিচারিক আদালত থেকে পাঠানো ডেথ রেফারেন্স, রায় ও মামলার নথিপত্র হাইকোর্টে পাঠানো হয়। এরপর নিয়ম অনুসারে প্রয়োজনীয় কাজ সম্পন্নের পর ডেথ রেফারেন্স শুনানির জন্য বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিমের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চের কার্যতালিকায় আসে।

About

Popular Links