Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

প্রবাসী স্বামীর কাছে স্ত্রীর পাঠানো ব্যক্তিগত ছবি নিয়ে পর্নোগ্রাফি!

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী নারীর বাবা বাদী হয়ে ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন

আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:৫০ পিএম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে প্রবাসীর স্ত্রীর ছবি দিয়ে পর্নোগ্রাফি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) ভুক্তভোগী নারীর বাবা বাদী হয়ে ৪ জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাতনামা আরও ৫ জনকে আসামি করে সরাইল থানায় মামলাটি করেন। 

আসামিদের মধ্যে মো. রাসেল মিয়া (২৭) ও বাধন মিয়া (২০)-কে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

মামলা ও ভুক্তভোগীর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বিয়ের দেড় মাস পর ওই গৃহবধুর স্বামী মালয়েশিয়ায় চলে যান। এরপর থেকে ঘটনার মূল অভিযুক্ত রুমেলদের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন ওই নারী। মালয়েশিয়ায় যাওয়ার পর প্রবাসী স্বামীর সঙ্গে স্মার্টফোনে ব্যক্তিগত ছবি আদান-প্রদান হতো তার। 

ওই নারীর বিকাশ নম্বরে স্বামী টাকা পাঠাতেন। সবসময় তিনি নিজেই সেই টাকা ক্যাশআউট করতেন।

কয়েক মাস আগে ওই নারী অসুস্থ হয়ে পড়ায় তার ব্যবহৃত স্মার্টফোনটি রুমেলের হাতে দিয়ে বিকাশের টাকা ক্যাশআউট করেন। এভাবে বেশ কয়েকবার রুমেলের সহায়তায় ক্যাশআউট করেন তিনি। সুযোগে বুঝে রুমেল মুঠোফোন থেকে গৃহবধুর ব্যক্তিগত ছবি গুলো রেখে দেয়।

আনুমানিক ৫-৬ মাস আগে রুমেলসহ স্থানীয় যুবক রাসেল, বাঁধন, আশিকসহ আরও কয়েকজন ওই নারীকে ফোন করে ছবিগুলো নিয়ে ব্ল্যাকমেইল করতে শুরু করে। ওই ছবিগুলো এডিট করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেওয়ার হুমকিও দেয় তারা। সম্মান রক্ষার্থে ওই নারীর স্বামী অভিযুক্তদের সঙ্গে সমঝোতা করে তাদেরকে ৫০ হাজার টাকা দেন। 

তারপরেও অভিযুক্তরা ওই নারীকে ফোন করে কূরুচিপূর্ণ কথাবার্তা বলতে থাকে। আরও টাকা না দিলে ওই ছবিগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল করে দেওয়ার হুমকি দেয়। এরই একপর্যায়ে অন্যতম অভিযুক্ত আশিক মিয়া গৃহবধূকে কুপ্রস্তাব দেয়।

সম্প্রতি তারা ওই নারীর ব্যক্তিগত ছবিগুলো এডিট করে রুমেলের ছবির সঙ্গে যুক্ত করে ফেসবুকে ছেড়ে দেয়।

গত সপ্তাহে ওই গৃহবধুর কাছে আরও টাকা দাবি করে ছবিগুলো দ্রুত ভাইরাল করে দেওয়ার হুমকি দেয় অভিযুক্তরা। এ ঘটনায় ওই নারীর বাবা সরাইল থানায় মামলা করেন।

এ বিষয়ে সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এম এম নাজমুল আহমেদ বলেন, “আসামিরা ব্ল্যাকমেইলিং করে ওই নারীর পরিবারের কাছ থেকে টাকা আদায় করেছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা করা হয়েছে। আমরা দুই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছি। অন্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।”

About

Popular Links