Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সৌদি ফিরতে ইচ্ছুক প্রবাসীদের ধৈর্য ধরার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

সৌদি সরকার শৃঙ্খলাবিরোধী কোনো কার্যক্রম সমর্থন করে না এবং এ ধরনের বিক্ষোভ কর্মীদের পক্ষে নেতিবাচক পরিণতি বয়ে আনতে পারে বলেও সতর্ক করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আপডেট : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:১০ পিএম

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন সৌদি আরবে ফিরে যেতে ইচ্ছুক প্রবাসী বাংলাদেশিদের বিশৃঙ্খলা করার পরিবর্তে ধৈর্য ধরার আহ্বান জানিয়েছেন।

বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) আন্তমন্ত্রণালয়ের এক বৈঠক শেষে নিজ কার্যালয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “সমস্যাটি সমাধানে আমরা আন্তরিকভাবে এবং সবাই মিলে কাজ করছি।”

সৌদি সরকার শৃঙ্খলাবিরোধী কোনো কার্যক্রম সমর্থন করে না এবং এ ধরনের বিক্ষোভ কর্মীদের পক্ষে নেতিবাচক পরিণতি বয়ে আনতে পারে বলেও সতর্ক করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

“আমাদের প্রধানমন্ত্রী (শেখ হাসিনা) কখনই প্রবাসীদের কোনো ক্ষতি চান না,” বলেন ডা. মোমেন।

এছাড়া বৈধ ভিসা এবং আকামার মেয়াদ আরও তিন মাস বাড়ানোর জন্য বাংলাদেশ সরকার সৌদি সরকারের প্রতি অনুরোধ করেছে বলেও জানান তিনি।


আরও পড়ুন - মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের পর অবরোধ তুলে নিলেন শ্রমিকেরা


সৌদি আরবের পক্ষ থেকে ইতিবাচক সাড়া পাওয়ার আশা প্রকাশ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “আমরা গতকাল এ (মঙ্গলবার) অনুরোধ জানিয়েছি।”

কারও দ্বারা প্রভাবিত না হতে শ্রমিকদের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যে ব্যক্তি প্রতিবাদী শ্রমিকদের পক্ষে দাবিপত্র জমা দিয়েছেন তিনি প্রবাসী নন, রাজনীতিতে জড়িত স্থানীয় একজন।

দেশে এসে আটকা পড়া বাংলাদেশিদের জন্য আকামা কিংবা ভিসার মেয়াদ আরও তিন মাস বাড়ানোর অনুরোধ জানিয়ে মঙ্গলবার সৌদি আরবকে চিঠি দেয় বাংলাদেশ।

এর আগে দেশে আটকা পড়াদের জন্য মোট তিন দফায় বাংলাদেশিদের আকামার মেয়াদ বাড়িয়েছে সৌদি সরকার।


আরও পড়ুন - টিকিটের দাবিতে কারওয়ান বাজারে ৫ হাজার সৌদি প্রবাসী


আকামার সর্বশেষ বর্ধিত মেয়াদ শেষ হচ্ছে ৩০ সেপ্টেম্বর। এমন পরিস্থিতিতে ৩০ সেপ্টেম্বরের পর আকামার মেয়াদ আরও তিন মাস বাড়ানোর অনুরোধ জানিয়ে সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে একটি চিঠি পাঠায় দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতাবাস।

আগামী ১ অক্টোবর থেকে যুক্তরাজ্যে ফ্লাইট পরিচালনার অনুমোদন পাওয়ার কথা জানিয়েছেন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মোকাব্বির হোসেন। তবে বাংলাদেশ থেকে এখনও সৌদি আরবে ফ্লাইট পরিচালনার অনুমোদন পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।

বাংলাদেশের অভিবাসী কর্মীদের অন্যতম জনপ্রিয় গন্তব্য তেল সমৃদ্ধ দেশ সৌদি আরব। গত বছর বাংলাদেশি অভিবাসীরা দেশে পাঠিয়েছেন ১৮.৩৫৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এর মধ্যে সৌদি থেকেই পাঠানো হয়েছে ৩.৬৪৭ বিলিয়ন (১৯.৮৭%) মার্কিন ডলার।


আরও পড়ুন - অভিবাসী শ্রমিকদের প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় অবরোধ

About

Popular Links