Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বিদ্যুৎ ছিল না সংসদ অধিবেশনে!

‘আমরা জেনারেটর দিয়ে একঘণ্টার মতো বৈঠক চালিয়ে পরে মুলতবি করেছি।’

আপডেট : ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৮:১৬ পিএম

বিদুৎ না থাকার কারণে তাড়াহুড়ো করে মুলতবি করা হয়েছে সংসদ অধিবেশন। মঙ্গলবার (১১ সেপ্টেম্বর) এক ঘন্টা জেনারেটরের সাহায্যে সংসদের বৈঠক চালানোর পরও বিদ্যুৎ না আসায়, অধিবেশন মুলতবি করা হয়। 

মঙ্গলবার বিকাল ৫টা ১০ মিনিটের দিকে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের বৈঠক শুরু হয়। বৈঠকের শুরুতে প্রশ্নোত্তর পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

সংসদ সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার অধিবেশন শুরুর আগেই বিদ্যুৎ সমস্যা শুরু হয়। এরপর নিজস্ব জেনারেটরের সাহায্যে সংসদের অধিবেশন কার্যক্রম শুরু করা হয়। এভাবে ঘণ্টাখানেক চলার পর সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে সংসদে সভাপতির দায়িত্বে থাকা ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া বৈঠক মুলতবি করেন। এর আগে তিনি মঙ্গলবারের বৈঠকের কার্যসূচিতে থাকা প্রশ্নোত্তর বাদে অন্যান্য কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করেন। আগামীকাল বিকাল ৫টায় আবার সংসদের বৈঠক বসবে।

সংসদ অধিবেশন মুলতবির কারণ জানতে চাইলে ডেপুটি স্পিকার সাংবাদিকদের বলেন, “বিদ্যুৎবিভ্রাটের কারণেই বৈঠক মুলতবি করা হয়েছে।”

এ বিষয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে ডেপুটি স্পিকার বলেন, “সংসদে আমরা যে বিদ্যুৎ পাই, তা মেঘনাঘাট বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে আসে। ওই বিদ্যুৎকেন্দ্রে বিপর্যয় ঘটায় সংসদে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়েছে। আমরা জেনারেটর দিয়ে একঘণ্টার মতো বৈঠক চালিয়ে পরে মুলতবি করেছি।” সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এ সময় সংসদ সচিবালয়ের প্রধানমন্ত্রী ব্লক ও অধিবেশ কক্ষ ছাড়া কোথাও বিদ্যুৎ ছিল না। 

এ বিষয়ে ডিপিডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকাশ দেওয়ান বলেন, “আমরা এখন ঘটনাস্থলে আছি। কারণ, খতিয়ে দেখা হচ্ছে। খতিয়ে দেখার পর বোঝা যাবে কেন জাতীয় সংসদ ভবনে বিদ্যুতের এই সমস্যা হচ্ছে।”

অন্যদিকে পিডিবি জানায়, কারিগরি ত্রুটির কারণে বন্ধ হয়ে গেছে মেঘনাঘাট বিদ্যুৎকেন্দ্র। রাত ১০টা বা ১১টা নাগাদ কেন্দ্রটি থেকে আবার বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হবে বলে আশা করছে পিডিবি। 



About

Popular Links