Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বিবস্ত্র করে নির্যাতন: প্রধান অভিযুক্ত দেলোয়ার অস্ত্রসহ গ্রেফতার

এ নিয়ে এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত চারজনকে গ্রেফতার করা হলো 

আপডেট : ০৫ অক্টোবর ২০২০, ০১:২৯ পিএম

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন এবং সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার ঘটনায় ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ থেকে প্রধান অভিযুক্ত দেলোয়ারসহ আরও দু'জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সদস্যরা। এ নিয়ে এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত চারজনকে গ্রেফতার করা হলো। সর্বশেষ গ্রেফতার ব্যক্তি হলো - কুখ্যাত “দেলোয়ার বাহিনীর” প্রধান দেলোয়ার এবং বেলাল।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-১১ এর কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল খন্দকার সাইফুর আলম জানান, সোমবার রাত ২টার দিকে কামরাঙ্গীরচর এলাকা থেকে র‌্যাবের একটি দল বেলালকে এবং অপর একটি দল রাত ৩টার নারায়ণগঞ্জের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক থেকে দেলোয়ারকে আটক করেছে।

দেলোয়ার এ সময় একটি অস্ত্র বহন করছিল এবং তারা দু’জনেই পালানোর চেষ্টা করছিল বলেও জানান তিনি।


আরও পড়ুন - গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনায় মামলা, গ্রেফতার ৪


এর আগে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে আলোচিত এই ঘটনায় আরও দুইজনকে গ্রেফতার করে বেগমগঞ্জ থানার পুলিশ। বেগমগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হারুন অর রশীদ চৌধুরী বলেন, “পুলিশের ৫টি ইউনিট ৭ ঘন্টা অভিযান চালিয়ে দুই আসামিকে গ্রেফতার করে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।”

নোয়াখালীতে গ্রেফতার হওয়া দুই ব্যক্তি হলো – জেলার একলাশপুর ইউনিয়নের জয়কৃষ্ণপুর গ্রামের হারিধন ভূঁইয়া বাড়ির শেখ আহমদ দুলালের ছেলে আবদুর রহিম (২২) ও একই এলাকার মোহর আলী মুন্সি বাড়ির মৃত আবদুর রহিমের ছেলে মো. রহমত উল্যাহ (৪১)।

উল্লেখ্য, রবিবার নোয়াখালীর এক গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। তবে, মূল ঘটনা ঘটে আরও ৩৩ দিন আগে। রবিবার ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, নির্যাতনের সময় ওই গৃহবধূ বহুবার পায়ে ধরে এবং বাবা-বাবা বলে ডাকলেও নির্যাতন চালিয়ে যায় বখাটেরা।


আরও পড়ুন - নোয়াখালীতে গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন করলো দুর্বৃত্তরা


ভাইরাল হওয়া ভিডিওটি জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আলমগীর হোসেনের নজরে আসলে তিনি এ বিষয়ে তড়িৎ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বেগমগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশ প্রদান করেন।

এর প্রেক্ষিতে অভিযান চালিয়ে মামলার আসামি ও সন্দেহভাজন হিসেবে চারজনকে গ্রেফতার করা হয়।

About

Popular Links